পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ এবং ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা

প্রিয় পাঠক, পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ এবং ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা, এই মজার আর্টিকেলে আমরা জানবো ফল হিসেবে পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ এবং ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে। তাহলে চলুন, পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ এবং ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই।
পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ
পেয়ারাতে বিদ্যমান কম ক্যালোরি এবং ফাইবার থাকায় ডায়েটের জন্যও খুবই উপকারী। তাই পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ এবং ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা এই আর্টিকেলটি সবার জন্যই বেশ উপকারী হবে বলে মনে হয়।
সূচিপত্রঃ পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ এবং ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা।

ভূমিকা

বিশেষজ্ঞদের মতে, চারটি কমলালেবু ও চারটি আপেলের ভিটামিনের সমান একটি পেয়ারা। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন সি ও লাইকোপেন ভিটামিন সহ আরো অনেক পুষ্টিগুণ রয়েছে মজার এই ফলে। পেয়ারা চোখের জন্য বেশ উপকারী। পেটের হজম শক্তি বাড়াতেও কাজ করে। সেই সাথে দুরারোগ্য ব্যাধি ক্যান্সারের জন্যও উপকার করে।

পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা

  • পেয়ারাতে বিদ্যমান ভিটামিন এ চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়ায় এবং রাতকানা রোগ থেকে রক্ষা করে।
  • পেয়ারাতে বিদ্যমান ভিটামিন সি মানুষের শরীরের ভাইরাস ও ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
  • টাইপ -২ ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারাতে বিদ্যমান ফাইবার বা আশ শরীরের চিনির শোষণ ক্ষমতা কমাতে সাহায্য করে।
  • পেয়ারা ওজন কমাতে সহযোগিতা করে।
  • প্রটেস্ট ক্যান্সার, স্তন ক্যান্সার এবং ক্যান্সার কোষের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারে এই পেয়ারা।
  • পেয়ারা খেলে শরীরের রক্তের সঞ্চালন সঠিক থাকে ফলে হৃদরোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরাও পেয়ারা খেতে পারেন।
  • ডায়রিয়া রোগীদের জন্যও এই ফল বেশ উপকারী। এটা ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধেও ভালো কাজ করে।

ফল হিসাবে পেয়ারার পুষ্টিগুণ

  • পিয়ারাতে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে রয়েছে ভিটামিন সি(২১১ মি.গ্রাম), যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং মুখ গহ্বর দাঁত ও মারি সুস্থ রাখে।
  • ১০০ গ্রাম পেয়ারায় ০.৬ গ্রাম মিনারেল বা পানি রয়েছে, ০.৩ গ্রাম থায়ামিন,০.৩ রিবোফ্লোবিন রয়েছে।
  • এছাড়াও প্রতি ১০০ গ্রাম পেয়ারায় ৭৬ কিলো ক্যালরি খাদ্য শক্তি, ১.৪ গ্রাম প্রোটিন এবং ১৫.২ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট পাওয়া যায়।
  • আরো রয়েছে ১.৪ মি.গ্রাম আয়রন, ২৮ মিলিগ্রাম ফসফরাস ও ২০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম।
এক কথায়, প্রায় সমস্ত পুষ্টি উপাদানে ভরপুর এই রসালো ফল।

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য সবচেয়ে বড় প্রয়োজন হলো সুশৃংখল জীবন যাপন। সুশৃংখল জীবন যাপন বলতে মূলত যা বুঝায় তা হল, নিয়মিত ঘু্‌ পরিমিত খাবার ও প্রতিদিন হালকা ব্যায়াম। তাই খাবার মেনু এমনভাবে নির্বাচন করতে হবে, যে খাবারগুলো খেলে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বাড়তে দেয় না, সেই খাবারগুলো পরিমিত মাত্রায় নিয়মিত খেতে হবে।
ফল হিসাবে পেয়ারা একজন ডায়াবেটিকস রোগীর জন্য বেশ উপাদে একটি ফল। কারণ পেয়ারাতে বিদ্যমান গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জিআই) থাকে। যা হজম হয় ধীরে ধীরে এবং শরীরের শোষিত হয় ধীরে ধীরে। পেয়ারা মানব দেহের অভ্যন্তরেই চিনির মাত্রা নিয়ন্ত্রণের জন্য কাজ করে থাকে। যার ফলে বাড়তি খাবার গ্রহণে অনীহা তৈরি হয়। পেয়ারাতে বিদ্যমান ফাইবার বা তন্তু বা আঁশ থাকায় রক্তের শর্কর করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে। কারণ ফাইবার হজম হতে দীর্ঘ সময় নেয় এবং এটি রক্ত প্রবাহে দ্রুত না মিশে ধীরে ধীরে বেরিয়ে যায়।
পেয়ারাতে ক্যালরি কম থাকায় এটি দেহের ওজন নিয়ন্ত্রণ করে। অতিরিক্ত ওজন রক্তে ব্লাড সুগার বেড়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ। ১০০ গ্রাম পেয়ারাতে ক্যালরি রয়েছে মাত্র ৬৮ মিলিগ্রাম এবং চিনি রয়েছে মাত্র ৮.৯২ মিলিগ্রাম। পেয়ারাতে সোডিয়ামের পরিমাণ কম এবং পটাশিয়াম এর পরিমাণ বেশি থাকায় ডাইবেটিসের রোগীর ডায়েটের জন্য বেশ উপকার করে।
সবগুলোর দিক বিবেচনা করে একজন ডায়াবেটিস রোগীর জন্য পেয়ারা খুবই প্রয়োজনীয় একটি ফল। কারণ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ রাখলে হার্টের রোগ, স্ট্রোক, চোখ, কিডনির সমস্যা এড়ানো সম্ভব। ডায়াবেটিস এমন একটি রোগ যা শরীরের যে কোন অঙ্গকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। তাই পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ এবং ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা এই আর্টিকেলটি পড়ার পরে আপনি অবশ্যই আপনার প্রতিদিনের খাবারে পেয়ারা রাখতে ভুল করবেন না।

প্রতিদিন পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা

  • প্রতিদিন পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা গুলো জেনে নিন
  • প্রতিদিন পেয়ারা খেলে সর্দি-কাশির প্রতিরোধ হিসেবে কাজ করে।
  • পেয়ারা কোষ্ঠকাঠিন্যের ঔষধ হিসেবে কাজ করে।
  • শরীরের ইমিউনিটি সিস্টেমকে শক্তিশালী করে।
  • ডায়াবেটিস রোগীদের ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।
  • শরীরের ওজন কমাতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।
  • পেয়ারা ডায়রিয়া নিয়ন্ত্রনেও কাজ করে।
  • মরণব্যাধিক ক্যান্সার নিয়ন্ত্রণেও পেয়ারার ভূমিকা রয়েছে।
  • উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে খাবারের তালিকায় প্রতিদিন পেয়ারা রাখুন।

পেয়ারাতে কি কি ভিটামিন বিদ্যমান

পেয়ারা একটি পুষ্টিকর ফল। এই ফলটিতে ভিটামিন সি, ক্যরোটিনয়েডস, ফোলেট, পটাশিয়াম, ফাইবার এবং ক্যালসিয়াম সহ নানা পুষ্টিতে ভরপুর। ১০০ গ্রাম পেয়ারায় ২০০ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি, পানি ৮৬.১০ গ্রাম, শক্তি ৫১ কিলো ক্যালরি, প্রোটিন ০.৮২ গ্রাম, আঁশ ৫.৪ গ্রাম, ফসফরাস ২৫ মিলিগ্রাম, সোডিয়াম ৩ মিলিগ্রাম ,ভিটামিন এ ৭৯২ আই ইউ থাকে। এছাড়াও পেয়ারাতে ম্যাঙ্গানিজ, সেলিনিয়াম, ভিটামিন বি১, বি ২, বি ৩ প্রভৃতি মূল্যবান খনিজ ও ভিটামিন থাকে। এছাড়াও পেয়ারার বীজে ওমেগা ৩ ও ওমেগা ৬ এবং ফ্যাটি এসিড বিদ্যমান।

প্রতিদিন একটি করে পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা

আপনি যদি একজন স্বাস্থ্য সচেতন হন অথবা আপনার পরিবারের স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে থাকেন তাহলে অবশ্যই আপনি আপনার খাদ্য তালিকায় প্রতিদিন একটি করে হলেও পেয়ারা রাখুন। পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ এবং ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা এই আর্টিকেলটি যদি আপনি পড়ে থাকেন তাহলে অবশ্যই আজ থেকেই অন্তত একটি করে হলেও পেয়ারা আপনি আপনার খাদ্য তালিকায় রাখবেন।
পেয়ারাতে আছে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন সি, লাইকোপেন এবং বিভিন্ন খনিজ উপাদান যা একজন মানুষের শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য খুবই প্রয়ো। তাই আপনি আপনার খাদ্য তালিকায় প্রতিদিন একটি করে হলেও পেয়ারা রাখুন।

পাকা পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা

পাকা পেয়ারা খাওয়ার ফলে রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইড ও ক্ষতিকারক কোলেস্টেরল এল ডি এল(LDL) এর মাত্রা কমে যায় এবং উপকারী কোলেস্ট্রল এইচডিএল(HDL) এর মাত্রা বেড়ে যায়। যার ফলে আমাদের হৃদপিণ্ড ভালো থাকে। তাই আপনার হার্ট ভালো রাখতে প্রতিদিন পাকা পেয়ারা খাওয়ার চেষ্টা করুন।

পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা গর্ভবতী মায়েদের জন্য

  • একজন গর্ভবতী মাকে নিজের জন্য যেমন খেতে হয়, ঠিক তেমনি পেটের সন্তানের জন্যও আলাদা খাবারের প্রয়োজন হয়। তাই অবশ্যই তাকে পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে।আর একটি পেয়ারা তার সবরকম পুষ্টির প্রয়োজন পূরণ করতে পারে।
  • একজন গর্ভবতী মায়ের উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকি থাকে তাই প্রতিদিন একটি করে পেয়ারা খেলে সেই ঝুঁকি থেকে অবশ্যই রক্ষা পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
  • বাচ্চার মস্তিষ্ক এবং স্নায়ু তৈরিতে ফলিক এসিড খুবই প্রয়োজনীয় আর পেয়ারা ফলিক এসিড সমৃদ্ধ।
  • গর্ভ অবস্থায় সাধারণত মায়েদের মানসিকভাবে শান্ত থাকার প্রয়োজন হয় আর পেয়ারা মানসিক চাপ কমাতে সাহায্য করে।
  • বাচ্চা পেটে আসলে সাধারণত মায়েদের ব্লাড সুগার লেভেল বেড়ে যায় আর এই ব্লাড সুগার লেভেল স্বাভাবিক রাখতে প্রতিদিন একটি করে পেয়ারা খান।
  • মা ও শিশুর দৃষ্টিশক্তির উন্নতি রাখতে পেয়ারা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।
  • গর্ভবতী মায়েদের স্তন ক্যান্সারের প্রবণতা দেখা দেয় ।পেয়ারা একটি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ ফল যা ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়।
  • একজন গর্ভবতী মা প্রথম অবস্থায় পেট খারাপ বা অ্যাসিডিটে ভুগে থাকেন। নিয়মিত পেয়ারা খেলে হজম প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করবে এবং সহজেই বমি বমি ভাবকে কমিয়ে দিবে।
সর্বোপরি একজন গর্ভবতী মাকে অবশ্যই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সম্পন্ন হতে হবে। আর প্রতিদিন একটি করে পেয়ারা একজন গর্ভবতী মায়ের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করবে।

পেয়ারা খাওয়ার অপকারিতা

প্রিয় পাঠক, পেয়ারা খাওয়ার বিভিন্ন উপকারী দিকগুলো নিয়ে আমরা উপরে আলোচনা করেছি। আসুন এবার জেনে নেই পেয়ারা খাওয়ার অপকারিতা অথবা খাওয়ার নিয়ম। আসলে পেয়ারা এমন একটি ফল এর কোন অপকারিতা নেই তবে যে কোন ফলই বেশি খেলে আপনার ক্ষতি হতে পারে। তাই পরিমিত পরিমাণে খেতে হবে। তাই আসুন বেশি পরিমাণে খেলে আপনার কি কি ক্ষতি হতে পারে সে বিষয় নিয়ে আলোচনা করি।
  • পেয়ারা যেহেতু একটি ঠান্ডা জাতীয় ফল তাই বেশি খেলে সর্দি কাশি হতে পারে।
  • গর্ভবতী মায়েদের অবশ্যই পরিমিত মাত্রায় খেতে হবে।
  • পেয়ারার পাশাপাশি এর পাতা খেলেও আপনার ক্ষতি হতে পারে। পেয়ারার পাতা রক্তস্বল্পতা, মাথা ব্যাথা এমনকি কিডনির সমস্যাও তৈরি হতে পারে।
  • বেশি খেয়ে ফেললে পেট খারাপ হতে পারে।
  • অনেক সময় পাকা পেয়ারা বেশি খেয়ে ফেললে দাঁতে ব্যথা হতে পারে।
  • যাদের অ্যালার্জিজনিত সমস্যা আছে তাদের ক্ষেত্রে এলার্জি বেড়ে যেতে পারে।
প্রিয় পাঠক, পেয়ারা খাওয়ার উপকারিতা ও পুষ্টিগুণ এবং ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেয়ারা এই আলোচ্য সূচিতে আমরা পেয়ারা নিয়ে বিস্তার আলোচনা করেছি। আর এই আলোচনার মাধ্যমে আপনার যদি এতোটুকু উপকারে আসতে পারি তাহলে আমাদের কষ্ট সার্থক হবে। জীবনের প্রয়োজনে এরকম আরো অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানতে আমাদের সাথেই থাকুন। ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সার্চিং লিংক প্রোর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ২

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৩

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৪