সফল ইউটিউবার হতে গেলে যা জানা দরকার

 

প্রিয় পাঠক, একজন সফল ইউটিউবার হতে গেলে যা জানা দরকার আমরা আজকে সে বিষয়ে আলোচনা করব সফল ইউটিউবার হতে গেলে যা জানা দরকার এই আর্টিকেলটি পড়লে আপনি অবশ্যই ইউটিউবার হওয়ার ক্ষেত্রে আরেক ধাপ এগিয়ে যাবেন তাহলে চলুন সফল ইউটিউবার হতে গেলে যা জানা দরকার সে বিষয়ে আলোচনা শুরু করি
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বড় একটি প্লাটফর্ম হল YouTube। যেখানে আমরা বিনামূল্যে বিভিন্ন ভিডিও দেখতে পারি এবং শেয়ার করতে পারি। ২০০৫ সালে এই ওয়েবসাইটটি তৈরি হয়েছে। বর্তমান বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি বিনোদন মাধ্যম হিসেবে YouTube কে ধরা হয়।
সফল ইউটিউবার হতে গেলে যা জানা দরকার
কারণ এখানে প্রতি মিনিটে প্রায় 100 ঘন্টার ভিডিও আপলোড দেওয়া হয়। আপনি যা দেখতে চান, আপনার যা প্রয়োজন তার সবই আপনি YouTube থেকে পাবেন। শুধু তাই নয় ক্যারিয়ার গঠনের ক্ষেত্রেও YouTube বিশাল ভূমিকা রেখে চলেছে।

আর্টিকেল সূচিঃ সফল ইউটিউবার হতে হলে যা জানা দরকার

ভূমিকা

আপনি একটি YouTube চ্যানেল খুলেছেন শুধুমাত্র ভিডিও দেখার জন্য। আপনি যার ভিডিও দেখছেন সে কিন্তু তার ভিডিও দেখিয়ে আপনার কাছ থেকে অর্থ উপার্জন করে নিচ্ছে। তাহলে আপনি কেন পিছিয়ে থাকবেন। এখনই সিদ্ধান্ত নিন, আপনি হয় একজন সফল ইউটিউবার হবেন অথবা আপনার প্রোডাক্ট বা সার্ভিস ভিডিওর মাধ্যমে অন্যের সামনে তুলে ধরবেন।

আজকের এই আর্টিকেলে থাকছে একজন সফল ইউটিউবার হতে গেলে যা জানা দরকার। পুরো আর্টিকেলটি পড়ুন এবং একজন সফল ইউটিউবার হওয়ার ক্ষেত্রে নিজেকে এগিয়ে রাখুন।

YouTube চ্যানেল খোলার নিয়ম সম্পর্কে জানুন

  • কম্পিউটারের বা মোবাইলের ক্রোম ব্রাউজার (Chrome) এ গিয়ে ইউটিউব ডটকম (YouTube.com) লিখে সার্চ করে লিংকটি ওপেন করুন।
  • উপরের ডান পাশে সাইন ইন (Sign In) এই অপশনে প্রবেশ করুন।
  • Gmail অ্যাকাউন্ট ও পাসওয়ার্ড দিয়ে লগইন করুন।
  • উপরের ডান পাশে প্রোফাইল অপশনে প্রবেশ করুন।
  • ক্রিয়েট এ চ্যানেল (Create a Chanel) এই অপশনে প্রবেশ করুন।
  • আপনি যদি ইমেইল একাউন্ট এর নামে ইউটিউব চ্যানেল খুলতে চান তাহলে ইউজ ইওর নেম (Use your name) এই অপশনে প্রবেশ করুন।
  • আর যদি অন্য নামে খুলতে চান তাহলে ইউজ এ কাস্টম নেম (Use a custom name) এই অপশনে প্রবেশ করে পছন্দের নাম দিয়ে চ্যানেলটি খুলে ফেলুন।
এভাবে খুব সহজেই আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি খুলতে পারেন

সফল ইউটিউবার হতে গেলে যা জানা দরকার

একজন সফল ইউটিউবার হিসেবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করতে গেলে আপনাকে অবশ্যই নিচের ধাপগুলো অনুসরণ করতে হবে
  • প্রতি সপ্তাহে অন্তত ৩টি ভিডিও আপনাকে আপলোড করতে হবে।
  • দর্শক টার্গেট করে আপনাকে ভিডিও তৈরি করতে হবে।
  • ভিডিওর আকর্ষণীয় থাম্বেল ও টাইটেল নির্বাচন করতে হবে।
  • সাউন্ড ও ভিডিও কোয়ালিটি অবশ্যই ভালো হতে হবে।
  • ডেসক্রিপশন ভালো করে লিখতে হবে।
  • প্রতিটা ভিডিওর সাথে রিলেভেন্ট কিওয়ার্ড ব্যবহার করতে হবে।
  • প্রতিটা ভিডিও আপলোড করার পর এসইও (SEO) সঠিকভাবে করতে হবে।
  • আপনার চ্যানেলের নামের সাথে মিল রেখে ভিডিও তৈরি করুন।
মনে রাখবেন, সফলতা কখনো একদিনে আসে না। সফলতার জন্য লেগে থাকতে হয়। আমি মনে করি, সফল ইউটিউবার হতে গেলে যা জানা দরকার এই আর্টিকেলে উপরে বর্ণিত ধাপ গুলো অনুসরণ করলে আপনি অবশ্যই একজন ভাল ইউটিউবার হিসেবে নিজেকে আত্মপ্রকাশ করতে পারবেন।

ইউটিউবার হতে হলে কি করতে হবে?

সফলতার বড় একটি হাতিয়ার হল টার্গেট ফিক্সড করে আগানো। আপনার যদি টার্গেট থাকে ইউটিউবার হয়ে ভালো আয় করার তাহলে অবশ্যই আপনাকে নিম্নলিখিত বিষয়গুলো জানতে হবে।
  • ইউটিউব চ্যানেল খোলার আগে অবশ্যই ভালো ভালোভাবে ভেবে নিতে হবে কোন বিষয় বা টপিক নিয়ে চ্যানেলটি তৈরি করব এবং ভিডিও আপলোড করব।
  • একটি ছোট এবং ইউনিক নাম নির্বাচন করুন যা আগে কেউ ব্যবহার করেনি।
  • আপনার চ্যানেলের জন্য একটি আট্রাকটিভ লোগো এবং চ্যানেল আর্ট তৈরি করুন।
  • কখনোই অন্য কোন চ্যানেল বা ওয়েবসাইট থেকে ভিডিও বা কোন কন্টেন্ট কপি করবেন না।
  • ভিডিও বা কনটেন্ট তৈরি করার আগে ভালোভাবে কিওয়ার্ড নির্বাচন করুন। ভিডিও এবং টপিকের সাথে মিল রেখে হাই কোয়ালিটির কনটেন্ট নির্বাচন করুন।
  • কোয়ালিটি কনটেন্টের সাথে মিল রেখে এট্রাক্টিভ থাম্বেল তৈরি করুন যা সহজেই দর্শকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে।
  • কোন কোন সোসিয়াল মিডিয়াতে (যেমন- Facebook, Linkedin, Twitter ইত্যাদি) আপনার ভিডিও শেয়ার করবেন তা আগে থেকেই পরিকল্পনা করে রাখুন।
  • প্রথমদিকে অর্থ উপার্জনের চেয়ে ভিডিওর কোয়ালিটির উপরে নজর দিন।
আশা করি, উপরে উল্লেখিত পয়েন্ট গুলো মনে রাখলে আপনি অবশ্যই একজন ভাল ইউটিউবার হিসেবে নিজেকে মেলে ধরতে পারবেন।

YouTube থেকে আয় করার সেরা ৫টি উপায় আপনার জন্য

একজন প্রফেশনাল ইউটিউবার ইউটিউব থেকে প্রতি মাসে লক্ষাধিক টাকা আয় করেন। কিভাবে এত টাকা আয় করা যায় চলুন উপায় গুলো জেনে নেই।
  • গুগল এডসেন্স (Google AdSense) বা বিজ্ঞাপন দেখিয়ে টাকা আয়। আমরা একটা ভিডিও দেখার সময় ভিডিওর শুরুতে, মাঝে অথবা শেষে যে বিজ্ঞাপনগুলি দেখতে পাই মূলত এখান থেকেই একটা আয় হয়ে থাকে।
  • আপনার ভিডিওটিতে কোন একটি কোম্পানির প্রোডাক্ট বিক্রির জন্য লিংক শেয়ার করা হয়। যাকে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বলে। আপনার শেয়ার করার লিংক থেকে যে পরিমাণ বিক্রি হবে তার একটি কমিশন চুক্তিভিত্তিক কোম্পানি আপনাকে দিবে।
  • আপনি আপনার ইউটিউব চ্যানেলে প্রোডাক্ট বিক্রি করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন। যেমন- বিভিন্ন ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, বই, কৃষি উপকরণ ইত্যাদি।
  • স্পন্সরশিপ এর মাধ্যমে টাকা আয়। যেসব ইউটিউবারদের অনেক বেশি ফলোয়ার আছে তারা তাদের প্রত্যেকটা ভিডিওতে নির্দিষ্ট একটা কোম্পানির প্রচারণা চালাতে পারেন এটাকেই স্পন্সর শিপ বলে।
  • আপনি যদি একজন সফল ইউটিউবার হতে পারেন তাহলে আপনার অনেক ফলোয়ার থাকবে। তখন আপনি একটা কোম্পানির কোন একটা প্রোডাক্ট রিভিউ এর মাধ্যমে অর্থাৎ পণ্যটির ভালো দিকগুলো তুলে ধরে পণ্য ক্রয়ে ক্রেতাকে উৎসাহিত করা। এটাকে বলে প্রোডাক্ট রিভিউ এর মাধ্যমে টাকা আয়।
  • আপনি একজন সফল টিউবার হলে উপরের প্রত্যেকটি থেকে টাকা আয় করতে পারবেন। তবে আমি আবারও বলছি, প্রথমদিকে আপনাকে টাকা ইনকাম এর চেয়ে অবশ্যই ভিডিওর কোয়ালিটির দিকে মনোযোগ দিতে হবে।

ইউটিউব থেকে টাকা তোলার উপায় গুলো জেনে নিন

প্রিয় পাঠক, আমরা ইউটিউব চ্যানেল খোলার নিয়মকানুন সম্পর্কে জানলাম। একজন সফল ইউটিউবার হতে কি কি লাগে সেগুলো জানলাম। ইউটিউব থেকে আয় করার সেরা উপায় গুলো জানলাম। এবার মূল বিষয়, কিভাবে ইউটিউব থেকে আমরা আমাদের উপার্জনকৃত টাকা উত্তোলন করতে পারি সে বিষয়ে আলোচনা করব।
  • ইউটিউব থেকে টাকা উত্তোলন জটিল কোন বিষয় নয়। কিছু নিয়ম অনুসরণ করে আমরা সহজেই আমাদের উপার্জনকৃত টাকা উত্তোলন করতে পারি। YouTube চ্যানেল মনিটাইজেশন হওয়ার পর মূলত আর্নিং শুরু হয়। সর্বনিম্ন 10 ডলার একাউন্টে জমা হইলে ইউটিউব আপনার ঠিকানায় হয় সংখ্যার কোড সম্বলিত একটি চিঠি পাঠিয়ে দিবে।
  • এই কোড ব্যবহার করে এডসেন্স একাউন্টের এড্রেস ভেরিফাই করতে হবে। এড্রেস ভেরিফাই হওয়ার পর এডসেন্স একাউন্টে থাকা ডলার খুব সহজেই আমরা যেকোনো ব্যাংকের মাধ্যমে উত্তোলন করতে পারব। এড্রেস ভেরিফিকেশন অপশনে আপনি যে ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট নাম্বার দিবেন ইউটিউব সেই ব্যাংকেই আপনার জমাকৃত ডলার টাকায় রূপান্তর করে পাঠিয়ে দিবে।
  • তবে মনে রাখবেন, যখন আপনার এডসেন্স একাউন্টে সর্বনিম্ন ১০০ ডলার জমা হবে তখনই আপনি ডলার উত্তোলন করতে পারবেন। ইউটিউব সাধারণত প্রতিমাসের ২১ তারিখে আপনার একাউন্টে টাকা পাঠিয়ে দিবে। আপনার একাউন্টে টাকা প্রবেশ করতে তিন থেকে পাঁচ দিন সময় লাগতে পারে।
  • এটি নির্ভর করে আপনার কোন ব্যাংকে একাউন্ট আছে সেটার উপরে। তবে সাধারণত, ইসলামী ব্যাংক লিমিটেডে টাকা দ্রুত পাওয়া যায়।
প্রিয় পাঠক, আজকের এই আর্টিকেলে একজন সফল ইউটিউবার হতে গেলে কি কি জিনিস লাগবে তা থেকে শুরু করে কিভাবে আপনি আপনার উপার্জনকৃত টাকা হাতে পাবেন এসব কিছু বিষয়ে বিস্তার আলোচনা হয়েছে ।

আশা করি, সফল ইউটিউবার হতে গেলে যা জানা দরকার এই আলোচনার মাধ্যমে আপনার ইউটিউবার হওয়ার স্বপ্ন পূরণের ক্ষেত্রে অনেকটাই সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। এরকম আরো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় জানতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করুন এবং আপনার প্রিয়জনদের সাথে শেয়ার করুন। ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সার্চিং লিংক প্রোর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ২

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৩

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৪