মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি?

মেনোপজ একজন নারীর জীবনে এক গুরুত্বপূর্ণ সময়। মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি? এই আলোচনায় মেনোপজ নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয় শেয়ার করব। আশা করি, মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি? এই সম্পর্কে পুরো আলোচনায় সাথে থাকবেন।তাহলে চলুন শুরু করা যাক, মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি?
মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয়
একটা নির্দিষ্ট বয়সে নারীদের মেনোপজ বা ঋতুস্রাব বন্ধ হয়ে যায়। এটা নারীদের জীবনের একটা স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। ভয় না পেয়ে কিছু স্বাভাবিক নিয়ম মেনে চললে খুব সহজেই এই সময়টি পার করে সুন্দর জীবন যাপন করা যায়।
সূচিপত্রঃ মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি?
  • ভূমিকা
  • মেনোপজ কি?
  • নারীদের কখন মেনোপজ হয়?
  • মেনোপজ এর লক্ষণ গুলো কি কি?
  • সময়ের আগেই মেনোপজ বা আর্লি মেনোপজ কী?
  • মেনোপজ চলাকালীন মহিলাদের বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যা ও করণীয়
  • মেনোপজের পরে কি একজন মহিলা গর্ভবতী হতে পারে?
  • আপনার কি কম বয়সেই মেনোপজ হয়ে গিয়েছে? তাহলে করণীয় কি?
  • শেষ কথা

ভূমিকা

মেনোপজ নারীদের জীবনে একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এ সময় নারীদের জীবনে অনেক পরিবর্তন আসে। আর এই পরিবর্তন সম্পর্কে সচেতন না হলে এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা না নিলে অনেক স্বাস্থ্যঝুঁকিও রয়ে যায়। মাসিক স্থায়ীভাবে বন্ধ হওয়াকে মেনোপজ এবং পরের ধাপকে পোস্ট মেনোপজ বলে। 
প্রতিটা ধাপের সময়কাল সাধারণত ৩ থেকে ৫ বছর। মেনোপজ হলে সাধারণত ৮০ শতাংশ নারীদের কোন চিকিৎসা লাগে না। বাকি। ৮থেকে ১০শতাংশ নারীর চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। এটা একটা প্রাকৃতিক নিয়ম এবং প্রকৃতগত ভাবেই ঠিক হয়ে যায়। তাই চলুন মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি? এ সম্পর্কে জেনে নেই।

মেনোপজ কি?

মেনোপজ বা রজোনীবৃত্তি হল এমন একটি সময় যখন নারীদের ঋতুস্রাব বন্ধ হয়ে যায় এবং গর্ভধারণের ক্ষমতা হারিয়ে ফেলে। ডিম্বাশয় নারীর একটি গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থি। এ গ্রন্থি থেকে যে হরমোন নিঃশ্রিত হয় তার কাজ হল ঋতুচক্রকে নিয়ন্ত্রণ করা। ডিম্বাশয় এর আরো একটা কাজ হল ডিম তৈরি করা। আর বয়স বাড়ার সাথে সাথে ডিমের পরিমাণ কমতে থাকে সেই সাথে হরমোনের পরিমাণও কমে যায়। 
ডিমের পরিমাণ এক সময় এতটাই কমে যায় যে ঋতু চক্র আর নিয়মিত করতে পারে না। ফলে বন্ধ হয়ে যায়। এ অবস্থায় একটানা ১২ মাস ঋতু চক্র বন্ধ থাকাকে মেনোপজ বলে।

নারীদের কখন মেনোপজ হয়?

মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি? এই আলোচনায় আমরা এখন জানবো নারীদের কখন মেনোপজ হয়? বিশেষজ্ঞ ডাক্তারগণের মতে নারীদের মেনোপজের গড় বয়স ৫১ বছর। নারীদের শারীরিক গঠন, খাদ্যাভ্যাস, পরিবেশ, ছেলে-মেয়ের সংখ্যা ইত্যাদির উপর ভিত্তি করে মেনোপজ হয়ে থাকে।
সাধারণত ৪৫ থেকে ৫০ বছর এই সময়ে মেনোপজ বেশি হয়। মেনোপজ হঠাৎ করেই শুরু হয় বিষয়টি তা নয় এর লক্ষণ অনেক আগে থেকেই প্রকাশ পায়।

মেনোপজ এর লক্ষণ গুলো কি কি?

মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি? এই গুরুত্বপূর্ণ আলোচনায় আমরা এখন মেনোপজ এর লক্ষণ গুলো কি কি? সে সম্পর্কে আলোচনা করব।
  • মেনোপোস এর লক্ষণ গুলোর মধ্যে সবচেয়ে বড় একটি লক্ষণ হল হট ফ্লাশ বা অতিরিক্ত গরম লাগা।
  • মাসিক বা পিরিয়ড অনিয়মিত হওয়া।
  • শরীরের ত্বক ও মাথার চুল শুষ্ক হয়ে যায়।
  • রাতের বেলায় শরীর অতিরিক্ত ঘেমে গিয়ে ঘুম ভেঙে যাওয়া।
  • যোনিপথ এবং তার আশপাশ শুষ্ক হয়ে যাওয়া।
  • ইস্ট্রোজেন এবং প্রজেস্টেরন হরমোন কমে যাওয়ার কারণে যৌন মিলনে অনিহা।
  • মানসিকভাবে বিষন্নতায় ভোগা এবং মেজাজ খিটখিটে হয়ে যাওয়া।
  • শরীরের বিভিন্ন জয়েন্টে ব্যথা অনুভব হওয়া।
  • সন্তান ধারণের সক্ষমতা চিরতরে হারানো।
উপরের বর্ণিত লক্ষণ গুলো ছাড়াও আরো বিভিন্ন রকমের শারীরিক ও মানসিক পরিবর্তন আসতে পারে। তবে খুব বেশি অস্বাভাবিক মনে হলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

সময়ের আগেই মেনোপজ বা আর্লি মেনোপজ কী?

মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি? এই আর্টিকেলে এখন আমরা আলোচনা করব সময়ের আগেই মেনোপজ বা আর্লি মেনোপজ কী?
মেনোপজ শুরু হওয়ার গড় বয়স ৫১ বছর এই বয়সের আগেই মেনোপজ শুরু হওয়াকে সময়ের আগেই মেনোপজ বা আর্লি মেনোপজ বলে। সাধারণত ৪০ থেকে ৪৫ বছর বয়স থেকে এটা হতে পারে আর্লি মেনোপজ এর লক্ষণগুলো হলো-
  • দুইটি মাসিকের মধ্যবর্তী সময় অনেক বিরতি দিয়ে হওয়া
  • পিরিয়ডের সময় খুব বেশি পরিমানে রক্ত স্রাব
  • অনেক সময় পিরিয়ড ছাড়াই ছোপ ছোপ আকারের রক্ত স্রাব
  • পিরিয়ডের সময় এক সপ্তাহের চেয়েও অনেক বেশি দিন স্থায়ী থাকা

মেনোপজ চলাকালীন মহিলাদের বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যা ও করণীয়

মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি? এই আর্টিকেলে আমরা এখন আলোচনা করব মেনোপজ চলাকালীন মহিলাদের বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যা ও করণীয় বিষয়গুলো নিয়ে।
  • মেনোপজের সময় হরমোনাল পরিবর্তনের কারণে প্রচন্ড মাথা ব্যথা হতে পারে। এজন্যে এ সময় পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিতে হবে এবং নিয়ম করে ঘুমাতে হবে।
  • এ সময় অনেকেরই ওজন বেড়ে যায়। তাই তৈলাক্ত খাবার পরিহার করে সুষম খাবার খেতে হবে।
  • এ সময় শরীরের ত্বক শুষ্ক হতে পারে এবং মুখে বলিরেখা পড়তে পারে। তাই ত্বক শুষ্ক রাখতে ফলমূল খাওয়ার পাশাপাশি ক্লিনজার ব্যবহার করতে হবে।
  • মেনোপজের সময় হাড় ক্ষয়ের প্রবণতা বেশি থাকে। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি গ্রহণ করতে হবে।
  • অনেকেই আবার বিষন্নতা বা হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েন। তাই নিয়মিত হাঁটাচলা ও স্বাভাবিক ব্যায়াম করতে হবে এবং মনকে প্রফুল্ল রাখতে হবে।

মেনোপজের পরে কি একজন মহিলা গর্ভবতী হতে পারে?

মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি? এই আর্টিকেলে আমরা এখন আলোচনা করব মেনোপজের পরে কি একজন মহিলা গর্ভবতী হতে পারে? তাহলে চলুন আলোচনা শুরু করা যাক।
  • বিশেষজ্ঞ ডাক্তারগণের মতে, নারীদের মেনোপজের গড় বয়স ৫১ বছর। নারীদের শারীরিক গঠন, খাদ্যাভ্যাস, পরিবেশ, ছেলে-মেয়ের সংখ্যা ইত্যাদির উপর ভিত্তি করে মেনোপজ হয়ে থাকে। সাধারণত ৪৫ থেকে ৫০ বছর এই সময়ে মেনোপজ বেশি হয়।
  • ডিম্বাশয় নারীর একটি গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থি। এ গ্রন্থি থেকে যে হরমোন নিঃশ্রিত হয় তার কাজ হল ঋতুচক্রকে নিয়ন্ত্রণ করা। ডিম্বাশয় এর আরো একটা কাজ হল ডিম তৈরি করা। আর বয়স বাড়ার সাথে সাথে ডিমের পরিমাণ কমতে থাকে সেই সাথে হরমোনের পরিমাণও কমে যায়।
  • ডিমের পরিমাণ এক সময় এতটাই কমে যায় যে ঋতু চক্র আর নিয়মিত করতে পারে না। ফলে বন্ধ হয়ে যায়। এ অবস্থায় একটানা ১২ মাস ঋতু চক্র বন্ধ থাকলে বুঝতে হবে মেনোপজের সময় শুরু হয়ে গেছে। আর যখন নারীদের ঋতুস্রাব বন্ধ হয়ে যায় তখন গর্ভধারণের ক্ষমতাও চিরতরে হারিয়ে ফেলে।

আপনার কি কম বয়সেই মেনোপজ হয়ে গিয়েছে? তাহলে করণীয় কি?

মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি? এই গুরুত্বপূর্ণ আলোচনায় আমরা এখন আলোচনা করব কম বয়সে মেনোপজ কেন হয়? এবং যদি হয়েই যায় তাহলে করণীয় কি তাহলে চলুন শুরু করা যাক।
বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের মতে, সাধারণত গড়ে ৪৫ থেকে ৫০ বছর বয়স থেকেই মেনোপজ শুরু হয়। কিন্তু কিছু কিছু ক্ষেত্রে মেনোপজ এর লক্ষণ দেখা যায় ৪০ বছরের আগেই, এটাকে আর্লি মেনোপজ বলে। এবং এটা অস্বাভাবিক। 
আর যাদের ভিতরে এই লক্ষণ প্রকাশ পায় তাদের হার্ট অ্যাটাক হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। পুষ্টিহীনতা, ধূমপান, মদ্যপান, বংশগত বিভিন্ন কারণেই আর্লি মেনোপজ হতে পারে। তাই আর্লি মেনোপজের লক্ষণ দেখা দেওয়ার সাথে সাথে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করুন।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক, মেনোপজ কি? নারীদের কখন মেনোপজ হয় এবং এর লক্ষণ গুলো কি কি? এই সংক্রান্ত বিষয়ে আমরা চেষ্টা করেছি সমস্ত রকমের তথ্য তুলে ধরার। আশা করি, এই পোষ্টটি পড়ার মাধ্যমে মেনোপজ সংক্রান্ত যাবতীয় প্রশ্নের উত্তর পেয়ে গেছেন। 
এর পরও যদি আপনার কোন কিছু জানার থাকে অবশ্যই কমেন্টস বক্সে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন আমরা চেষ্টা করব খুব কম সময়ে আপনার প্রশ্নেরউত্তর দেওয়ার।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সার্চিং লিংক প্রোর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ২

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৩

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৪