উইন্ডোজ ১০ এবং ১১ এর জন্য সেরা দশটি এন্ড্রয়েড অ্যামুলেটর

উইন্ডোজ ১০ এবং ১১ এর জন্য সেরা দশটি এন্ড্রয়েড অ্যামুলেটর নিয়ে আজকের আলোচনা।আপনি যদি উইন্ডোজ ১০ এবং ১১ এর জন্য সেরা দশটি এন্ড্রয়েড অ্যামুলেটর চালাতে চান তাহলে অ্যামুলেটর এর কোন অভাব নেই। তাহলে আসুন জেনে নেই উইন্ডোজ ১০ এবং ১১ এর জন্য সেরা দশটি এন্ড্রয়েড অ্যামুলেটর সম্পর্কে।উইন্ডোজ ১০ এবং ১১ এর জন্য সেরা দশটি এন্ড্রয়েড অ্যামুলেটরঅ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর ব্যবহারের সমস্যা হল এটি বিজ্ঞাপনের মত কাজ করতে পারে না। আমি এখানে ২০২৩ সালের উইন্ডোজ ১০ এবং ১১ এর জন্য অ্যান্ড্রয়েড অ্যামুলেটরের বেশ কিছু ব্যবহার নিয়ে আলোচনা করব। আশা করছি এগুলো আপনাদের অনেক উপকারে আসবে।


সূচিপত্র : উইন্ডোজ ১০ এবং ১১ এর জন্য সেরা দশটি এন্ড্রয়েড ইমুলেটর (Android Emulators)
  • ভূমিকা
  • উইন্ডোজ ১০ এবং ১১ এর জন্য সেরা দশটি এন্ড্রয়েড ইমুলেটর (Android Emulators)।
  • অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর (Android Emulators) পিসিতে ইন্সটল করার নিয়ম।
  • সবচেয়ে ভালো অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর (Android Emulators) কোনটি।

ভূমিকা

আজকাল মানুষ বিভিন্ন প্রয়োজনে তাদের উইন্ডোজে এ্যানড্রয়েড এমুলেটর ব্যবহার করার প্রয়োজন অনুভব করেন। যেমন- এন্ড্রয়েড রিসার্চ কারীরা তাদের অ্যাপগুলি ডিবাগ করতে পারে আবার গেমাররা একটি বড় স্ক্রিনে এন্ড্রয়েড গেমস যেমন- অ্যান্ড্রয়েড আরপিজ (RPG) উপভোগ করতে পারে।

উইন্ডোজ ১১ এর জন্য সেরা দশটি এন্ড্রয়েড ইমুলেটর (Android Emulators)

  • ব্লু ট্যাক্স (BLUE STACKS)
সেরা Android Emulators গুলির মধ্যে ব্লু ট্যাক্স অন্যতম। যা আপনার Windows ব্যবহারের ক্ষেত্রে দারুন অবদান রাখবে। যারা শুধুমাত্র গেম খেলে শুধু তাদের জন্যই নয় একজন সাধারন ব্যবহারকারীর জন্যও বুলু ট্যাক্স (BLUE STACKS) পিসিতে দারুণ কাজ করে। ব্লু ট্যাক্স (BLUE STACKS) নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানটি প্রতি বছর এটির আপডেট সংস্করণ নিয়ে এসেছেন।
বর্তমানে যে অ্যাপসটি পাওয়া যায় এটি সর্বশেষ সংস্করণ। ব্লু ট্যাক্স (BLUE STACKS) দিয়ে আপনি জেনসিং ইমপ্যাক্ট (Genshin Impact) এর মত গেম চালাতে পারবেন।
রুট্যাক্স অ্যাপস ব্যবহার করে বিএস ফাইভ (BS5) চালানোর ক্ষেত্রে গ্রাফিক্স কার্ডের কোন প্রয়োজন নেই এবং এটি এ এম ডি (AMD) এবং ইন্টেল পিসি (Intel Pc) উভয়ের সাথেই ব্যবহার করা যায়। গেমারদের জন্য ব্লু ট্যাক্স (BLUE STACKS) bs5 একটি নতুন ইন্টারফেস ব্লু ট্যাক্স (BLUE STACKS X )এক্স চালু করেছেন যা লাউড গেমিং খেলার জন্য দারুন মজাদার।
ন্যূনতম ৫ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেট থাকলেই আপনি ব্লু ট্যাক্স (BLUE STACKS) ব্যবহার করে দুই মিলিয়নেরও বেশি গেম খেলতে পারবেন।
ব্লু ট্যাক্স (BLUE STACKS) এর মধ্যে বেশ কিছু দারুণ বৈশিষ্ট্য আছে যেমন- গেম কন্ট্রোল, মাল্টি ইনস্ট্যান্ট, ইকো মোড, পারফরম্যান্স মোড, ট্রিম মেমোরি, এক্স বক্স এবং পি এস ফোর ইত্যাদি এছাড়াও এটি Windows 7 এবং 8.1 এর মত পুরাতন উইন্ডোজ গুলোতেও সাপোর্ট ক। এক কথায় আপনি যদি আপনার পিসিতে অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর ব্যবহার করতে চান তাহলে ব্লু ট্যাক্স (BLUE STACKS) ই সেরা।
  • অ্যান্ড্রয়েড স্টুডিও (Android Studio)
নতুন অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস পরীক্ষার ক্ষেত্রে একজন ডেভলপারকে গুগলের অফিসিয়াল অ্যান্ড্রয়েড এর সাথে লেগে থাকতে হবে কারণ অ্যান্ড্রয়েড স্টুডিও অ্যামুলেটরটি Android SDK এর সাথে যুক্ত করা। আপনি যেখান থেকে কোডিং এর কাজ করেন না কেন এন্ড্রয়েড স্টুডিও (Android Studio) ব্যবহার করার মাধ্যমে সেটি সরাসরি গুগলের সাথে যুক্ত হয়ে যাবে।
এটি খুব বেশি দ্রুত গতি সম্পন্ন এমুলেটর ন। তবে যতগুলো অ্যান্ড্রয়েড অ্যামুলেট আছে তার মধ্যে এটিও অন্যতম। এটি কম কনফিগারেশন এর পিসিতে ব্যবহার না করাই ভালো কারণ এটি কম কনফিগারেশন এর পিসিতে ব্যবহার করলে পিসি স্লো (Slow) হয়ে যেতে পারে। তবে এটি নতুন অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস পরীক্ষা করার ক্ষেত্রে সকল রকমের বৈশিষ্ট্য বিদ্যমান রয়ে।
  • গেমলুপ (Gameloop)
গেমলুপ হলো আরেকটি অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর। যা আপনি উচ্চ মানের গেম খেলতে আপনার পিসিতে ব্যবহার করতে পারেন। যারা ডেক্সটপ বা পিসিতে এন্ড্রয়েড ইমুলেটর ব্যবহার করে গেম খেলতে চান গেমলুপ শুধুমাত্র তাদের জন্যই তৈরি করা হয়েছে। গেমলুপ এমুলেটরকে আগে টেনসেন্ট গেমিং বুড্ডি বলা হতো।
আগে শুধুমাত্র PUBG মোবাইলে গেম খেলার জন্য গেমলুপ অ্যামুলেটরটি ব্যবহার করা হতো। কিন্তু বর্তমানে ফ্রি ফায়ার এবং কল অফ ডিউটির মতো গেমও আপনি এই অ্যান্ড্রয়েড এমুলেট ব্যবহার করে খেলতে পারব। এটি আপনি Play Store থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন সেই সাথে এটি মাউস এবং কিবোর্ডে ব্যবহারের উপযোগী।
  • এলডিপ্লেয়ার (LDPLAYER)
কেউ যদি প্রশ্ন করে উইন্ডোজ ১১ তে গেম খেলার জন্য সবচেয়ে ভালো অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর কোনটি তাহলে আমি তাকে সাজেশন করব এমডিপ্লেয়ার ব্যবহার করার জন্য। যদিও এলডিপ্লেয়ারটি মার্কেটে নতুন এসেছে। তবে ভালো পারফরমেন্সের কারণে এটির চাহিদা দিনে দিনে বাড়ছে। এমডিপ্লেয়ারের সর্বশেষ সংস্করণ হল এমডিপ্লেয়ার 9। 
বিভিন্ন অ্যান্ড্রয়েড হালকা গেম যেমন- জেনশিন ইম্প্যাক্ট, ব্লু আর্কাইভ, এপিক সেভেন এবং আরো বেশ কিছু জনপ্রিয় গেম এই অ্যাপটি ব্যবহার করে খেলা যায়। এখানে একটি অ্যাপ স্টোর রয়েছে যেখানে বিভিন্ন ধরনের গেম অ্যাপ্লিকেশন করা হয়েছে। সবকিছু মিলিয়ে এলইডি প্লেয়ার অ্যাপটি আপ টু ডেট করে তৈরি করা হয়েছে। যা উইন্ডোজ বা পিসিতে খুব সহজেই অ্যান্ড্রয়েডের গেমের মজা উপভোগ করা যায়।
  • নক্স প্লেয়ার
কোন ব্যক্তি যদি উইন্ডোজের জন্য এমন একটি অ্যান্ড্রয়েড এমুলেট খুঁজছেন যেখানে গেমিং ছাড়াও আরো অনেক বৈশিষ্ট্য আছে তাহলে আমি বলবো নক্স প্লেয়ার অ্যান্ড্রয়েড অ্যামোলেড টি আপনার জন্য। এটির ব্যবহার অনেক সহজ। এখানে এমন কিছু ইন্টারফেস যুক্ত করা হয়েছে যা ব্লু ট্যাক্স এবং অন্যান্য উইন্ডোজের চেয়েও অনেক ভালো। 
একই সাথে একাধিক গেম খেলার সক্ষমতা এই প্লেয়ার এর মধ্যে আছে। শুধু গেমারদের জন্যই নয় অ্যাপ্স ডেভেলপার অ্যাপস পরীক্ষার জন্যও এটি ব্যবহার করতে পারবেন। তাই আমি বলব উইন্ডোজ বা পিসিতে অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর হিসাবে নক্স প্লেয়ার প্লেয়ার সেরাদের মধ্যে অন্যতম।
  • মেমু প্লে (MEmu Play)
উইন্ডোজ বা পিসিতে ব্যবহারের জন্য মেমু প্লে আরেকটি ভালো এন্ড্রয়েড ইমুলেটর। মেমু প্লে ইমুলেটরের সবচেয়ে বড় বৈশিষ্ট্য হলো- এটি ইন্টেল এবং এ এম ডি সিপিইউ উভয়কে সমর্থন করে। এই অ্যামুলেটরটি একসাথে একাধিক অ্যাপ্লিকেশন ও এন্ড্রয়েড চালাতে পারে। সেই সাথে এই সফটওয়্যারটি ডিফল্ট রূপে অ্যান্ড্রয়েড নৌগাট 7.1.2 এর উপর ভিত্তি করে কিটক্যাট 4.4 এবং ললিপপ ৫.০ এক সাথে চালাতে পারে। 
উপরের তিনটি অ্যান্ড্রয়েড ভার্সনের জন্য তিনটি ভিন্ন ভিন্ন উইন্ডোজ রয়ে। গেম পেলেয়ারদের জন্য এই আমুলেটরটিতে দারুন অপটিমাইজেশন রয়েছে। এটা windows 7 থেকে 10 পর্যন্ত যেকোনো উইন্ডোজ এ চালাতে পারবেন এবং এটি ইন্টেল এবং এএমডি উভয় প্রসেসরে এক সাথে কাজ করে।
  • জেনিমোশন (Genymotion)
আপনি যদি একজন অ্যান্ড্রয়েড ডেভেলপার হন এবং আপনার অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস উইন্ডোজ এ পরীক্ষা করার জন্য ভাল একটি অ্যামুলেটর খুঁজছেন তাহলে জেনিমোশন (Genymotion) ইমুলেটরটি আপনার জন্য। অ্যাপস ডেভলপারদের জন্য এটি একটি জনপ্রিয় অ্যান্ড্রয়েড ভার্চুয়াল ডিভাইস। এটি উইন্ডোজ অ্যাপ ও ওয়েব ব্রাউজারের মাধ্যমে অফলাইন ক্লাউডে চলে। যা আপনি সহজেই ব্যবহার করতে পারবেন। 

তবে, এটি ব্যবহার করে কল অফ ডিউটি বা পাবজি মতো গেম খেলতে পারবেন না। সর্বোপরি এটি আপনি জিপি অ্যাপস প্যাকেজ থেকে গুগল প্লে স্টোরে গিয়ে ডাউনলোড করতে পারবেন।
  • প্রাইমওএস (PrimeOS)
প্রাইমওএস (PrimeOS) এটি কোন অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর নয় বরং এটি একটি এন্ড্রয়েড ওএস। যা সিপিইউ (CPU) এবং জিপিইউ (GPU) এর শক্তিকে কাজে লাগিয়ে যেকোনো উইন্ডোজ বা পিসিতে কাজ করে। মূলত আপনি যদি অ্যান্ড্রয়েড গেম খেলতে চান এবং অ্যামিলেটর ইন্সটল করতে না চান তবে এর বিকল্প হিসাবে এটি ব্যবহার করা যেতে পারে। 
প্রাইমওএস (PrimeOS) ব্যবহার করে আপনি সহজেই অ্যান্ড্রয়েড গেমের কিবোর্ড ম্যাপিং করতে পারবেন অ্যান্ড্রয়েড X86 এর বিকল্প হিসাবে প্রাইমওএস (PrimeOS) কে বিবেচনা করতে পারেন। আপনি গুগল প্লে স্টোর থেকে প্রাইমওএস (PrimeOS) ডাউনলোড করে নির্দ্বিধায় হাজার হাজার গেম ইন্সটল করে খেলতে পারবেন। 
এখানে ডে কা প্রো গেমিং(DecaPro Gaming Centre) সেন্টারও রয়েছে যা পিসিতে সেটআপ করে গেম খেলে দারুন উপভোগ করতে পারবেন। এটির সবচেয়ে বড় সুবিধা হল এটি উইন্ডোজ ১১ এর সাথে প্রাইম ওএস ডুয়েল বুট করতে পারবেন। সর্বশেষ আপনি যদি সহজ ভাবে এন্ড্রয়েড গেম খেলতে চান তাহলে প্রাইমওএস (PrimeOS) একটি সেরা প্ল্যাটফর্ম।
  • আরচন (ARChon)
আরচন (ARChon) মূলত সাধারণ অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর নয়, এটি একটি সিস্টেমে চলে। এটি কোন অ্যাপও নয়, এটি মূলত গুগল ক্রম (Google Chrome) এর সাথে চলে। তার মানে এটি একটি অ্যান্ড্রয়েড অ্যামুলেটর যা গুগল ক্রম (Google Chrome) ব্যবহার করে চলে। আপনি যদি একবার আপনার কম্পিউটার বা পিসিতে আরচন(ARChon) ইন্সটল করেন তাহলে এই অ্যাপের মাধ্যমে সরাসরি এন্ড্রয়েড এপিকে(Android APK) চালাতে পারবেন। 
আপনি এটিকে উইন্ডোজ(Windows), লিনাক্স(Linux), ম্যাক্সওয়েস(macOS) এবং ক্রোমওয়েস(Chrome OS) এর সাথে ব্যবহার করতে পারবেন। এটি একটি ওপেন সোর্স অ্যাপ যা আপনি বিনামূল্যে ব্যবহার করতে পারবেন। আপনি আপনার ইচ্ছামতো এটির কোড ও পরিবর্তন করতে পারবেন। আপনি যদি একটি সাধারন এন্ড্রয়েড অ্যামুলেটর খুঁজে থাকেন তাহলে কোন ঝামেলা ছাড়াই আপনি আরচন (ARChon) ব্যবহার করতে পারেন।
  • বিলিস ওএস (Bliss OS)
আপনি যদি আপনার পিসিতে অথবা কম্পিউটারে একাধিক এন্ড্রয়েড এমুলেটর ব্যবহার করেন তাহলে বিলিস ওএস (Bliss OS) অ্যাপসটি আপনার জন্য। Widevine L3 DRM সহ প্রায় সকল বৈশিষ্ট্য বিলিস ওএস (Bliss OS) অ্যাপসে পাবেন। তার মানে হল আপনি সহজেই অ্যান্ড্রয়েড পিসিতে Netflix স্ট্রিম পাবেন। 
গেমারদের জন্য বিলিস ওএস (Bliss OS) কি মাপিং, গেমপ্যাড, প্রোফাইল, কিবোর্ড এবং মাউস সাপোর্ট করে। তাই আপনি সহজেই আপনার পিসিতে আপনার প্রিয় অ্যান্ড্রয়েড গেম খেলতে পারবেন
আশা করি, উপরের তথ্যগুলো আপনার পিসিতে এন্ড্রয়েড এমুলেটর এর ব্যবহার ক্ষেত্রে অনেক উপকারে আসবে।

অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর (Android Emulators) পিসিতে ইন্সটল করার নিয়ম

১। প্রথমে আপনি আপনার ব্রাউজারটি ওপেন করুন এবং ওয়েব স্টোরে যান। এখানে আপনি অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর এর বিভিন্ন সাইট গুলো দেখতে পারবেন এবং সেখান থেকে ডাউনলোড করতে পারবেন।
২। ডাউনলোড করার জন্য আপনার পছন্দের এমুলেটরটি নির্বাচন করুন। তারপর সবুজ কালার চিহ্নিত ডাউনলোড বোতামে ক্লিক করুন। ক্লিক করার সাথে সাথে ডাউনলোড শুরু হয়ে যাবে।
৩। ডাউনলোড শেষ হয়ে গেলে অ্যাপ্লিকেশনটি ইন্সটল করতে কিছু গাইডলাইন অনুসরণ করতে হবে গাইডলাইন অনুসরণ করে নেক্সট বাটনে ক্লিক করুন এবং ইন্সটল করুন।
৪।ইনস্টল হয়ে গেলে অ্যাপটি চালু করুন এবং আপনার গুগল একাউন্ট দিয়ে লগইন করুন।
এভাবে আপনি আপনার কম্পিউটার বা পিসিতে এন্ড্রয়েড এমুলেটর ডাউনলোড করুন এবং ইন্সটল করুন।

সবচেয়ে ভালো অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর (Android Emulators) কোনটি?

ব্যবহারকারীদের মতে ব্লু ট্যাক্স (BlueStaks) বাজারের সবচেয়ে সেরা অ্যামুলেটর এন্ড্রয়েড অ্যাপ। কারণ এটি উইন্ডোজ এবং ম্যাক উভয় ক্ষেত্রেই ব্যবহার করা যায়। সহজভাবে গেম খেলার জন্য এখানে বিভিন্ন ফিচার সংযুক্ত করা হয়েছে। যা গেমারদেরকে আকৃষ্ট করেছে। সবচেয়ে বড় সুবিধাগুলোর মধ্যে রয়েছে কাস্টমাইজড কন্ট্রোল স্কিম, কি ম্যাপিং টুল, ইনস্ট্যান্ট ম্যানেজার যা একজন গেমার কে গেম খেলাতে আরো উপভোগ্য করে তুলেছে। 
বর্তমানে বিশ্বের ৫০০ মিলিয়ন এর বেশি গেমার এই ব্লু ট্যাক্স (BlueStaks) অ্যাপসটি ব্যবহার করছেন। তাই Android এমুলেটর এর মধ্যে ব্লু ট্যাক্সি (BlueStaks) সেরা।
উইন্ডোজ এ এন্ড্রয়েড অ্যামুলেটর (Android Emulators) কিভাবে কাজ করে
অ্যান্ড্রয়েড এমুলেটর মূলত একটি ভার্চুয়াল যন্ত্র। যা বিভিন্ন উইন্ডোজ বা প্লাটফর্মের উপরে কাজ করে। উদাহরণস্বরূপ ক্রোম বুকে লিনাক্স ব্যবহার করার মত উইন্ডোজ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সার্চিং লিংক প্রোর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ২

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৩

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৪