৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া - বাচ্চার নড়াচড়া কম হলে করণীয়

প্রিয় পাঠক, আপনি যদি ৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া কিভাবে করে এবং কিভাবে বুঝবেন জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আমরা আলোচনা করব নয় মাসের গর্ভবতীর পেটের বাচ্চা নড়াচড়া এবং কি খেতে হবে সেই সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে বিস্তারিত।

৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া
আপনি নিশ্চয় নয় মাসের গর্ভবতী বাচ্চার খাওয়া-দাওয়া এবং নড়াচড়া কিভাবে করে সেই সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন? হ্যাঁ আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আমরা আলোচনা করব নয় মাসের বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্যায়ে জেনে নেওয়া যাক ৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে বিস্তারিত।

পোস্ট সূচিপত্রঃ ৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া - বাচ্চার নড়াচড়া কম হলে করণীয়

  • ৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার ওজন
  • ৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া
  • ৯ মাসের গর্ভবতী লক্ষণ
  • ৩৬ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া
  • বাচ্চার নড়াচড়া কমে যাওয়ার কারণ
  • ১০ মাসের গর্ভবতী
  • ৩৪ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া
  • বাচ্চার নড়াচড়া কম হলে করণীয়
  • শেষ কথা

৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার ওজন

আপনি যদি ৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার ওজন কত হয় জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আমরা আলোচনা করব নয় মাসের গর্ভবতী বাচ্চার ওজন কত হতে পারে এবং কত হলে স্বাভাবিক থাকবে সেই সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার ওজন কত হলে স্বাভাবিক সেই সম্পর্কে। যে মেয়েরা গর্ব অবস্থায় সুস্থ থেকেছেন এবং সঠিক পরিমাণের যত্নের পাশাপাশি পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করেছেন তাদের ক্ষেত্রে শিশুর বৃদ্ধি নিয়ে চিন্তা করার প্রয়োজন নেই।
তবে কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায় যে সঠিক পরিমাণে মাল খাবার খেলেও গর্ভের বাচ্চা একটু কম বেড়ে ওঠে এবং তার ওজন একটু কম হয়। সে ক্ষেত্রে একজন মায়ের চিন্তিত হওয়াটাই স্বাভাবিক। একজন গর্ভবতী নারী যখন নয় মাসে পা রাখেন সেই সময় মায়ের গর্ভ অবস্থায় শেষ মাঝি হিসেবে ধরা হয়। এই সময়ে শিশুর ওজন ৬ থেকে ৯ পাউন্ড বা চার কেজির মতন হয়ে থাকে এবং ১৮ থেকে ২০ ইঞ্চি লম্বা হয়।

৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া

৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে জানতে হলে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আপনারা জানতে পারবেন নয় মাসের গর্ভবতী বাচ্চারা নড়াচড়া কিভাবে করে সেই সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে বিস্তারিত। গর্ভবতী বা গর্ভকাল বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পেটের মধ্যে শিশুর নড়াচড়াও বাড়তে থাকে। গর্ভের 32 তম সপ্তাহে শিশুর নড়াচড়া সর্বোচ্চ মাত্রায় পৌঁছে যায়। পরবর্তী থেকে প্রসবের আগ পর্যন্ত গর্ভের ভেতরে শিশুর নড়াচড়া স্থিতিশীল অবস্থান থেকে থাকে।

তবে যে সব সময়ের জন্য নড়াচড়ার মাদরাস স্থিতিশীল থাকলেও নড়াচড়ার ধরনের পরিবর্তন এসে যায়। গর্ব অবস্থায় নবম মাসে অর্থাৎ নয় মাসে একটি সুস্থ শিশুর জন্য প্রতি দুই ঘন্টা পর পর প্রায় ১০ বারের মতো লাথি মারা উচিত। যতক্ষণ আপনার পেটের শিশু ২ ঘন্টা পরপর লাথি মারবে ১০ থেকে ১২ বারের মতো ততক্ষণে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

৯ মাসের গর্ভবতী লক্ষণ

আপনি নিশ্চয়ই ৯ মাসের গর্ভবতী লক্ষণ সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন? হ্যাঁ আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আমরা আলোচনা করব নয় মাসের গর্ভবতী মায়ের লক্ষণ সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ৯ মাসের গর্ভবতী লক্ষণ কি কি থাকে। নয় মাসের গর্ভবতীর লক্ষণ নিচে দেওয়া হলঃ
  1. একজন গর্ভবতী মায়ের নয় মাসের গর্ভবতী লক্ষণের মূল কারণ হতে পারে অন্তর্বাসে সাদা স্রাবের সঙ্গে রক্তের দাগ লাগতে পারে। অবশ্য এটা এক থেকে দুই দিনের মধ্যে প্রসব শুরু হওয়ার চিহ্ন।
  2. কখনো কখনো মাসিকের ব্যথার মতো কিস কিসে ব্যথা উঠতে পারে। যত প্রসাবের সময় এগিয়ে আসে এই ব্যাথা তত বেশি হতে থাকে নিয়মিত এবং আরো যন্ত্রণাময় হয়ে যায়।
  3. একজন গর্ভবতী মায়ের নয় মাসের সময় পানি ভাঙতে পারে তবে এমন হলে স্বাস্থ্য কেন্দ্রে যাওয়াটাই উত্তম।

৩৬ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া

আপনি যদি ৩৬ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে জানতে চান তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আমরা আলোচনা করব ৩৬ সপ্তাহে গর্ভ অবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ৩৬ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে বিস্তারিত। গর্ভের ৩৬ তম সপ্তাহে শিশুর নড়াচড়া সর্বোচ্চ মাত্রায় পৌঁছে যায়।

পরবর্তী থেকে প্রসবের আগ পর্যন্ত গর্ভের ভেতরে শিশুর নড়াচড়া স্থিতিশীল অবস্থান থেকে থাকে। তবে যে সব সময়ের জন্য নড়াচড়ার মাদরাস স্থিতিশীল থাকলেও নড়াচড়ার ধরনের পরিবর্তন এসে যায়। গর্ব অবস্থায় নবম মাসে অর্থাৎ নয় মাসে একটি সুস্থ শিশুর জন্য প্রতি দুই ঘন্টা পর পর প্রায় ১০ বারের মতো লাথি মারা উচিত। যতক্ষণ আপনার পেটের শিশু ২ ঘন্টা পরপর লাথি মারবে ১০ থেকে ১২ বারের মতো ততক্ষণে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

বাচ্চার নড়াচড়া কমে যাওয়ার কারণ

আপনি নিশ্চয়ই বাচ্চার নড়াচড়া কমে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন? হ্যাঁ আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আমরা আলোচনা করব গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া কমে যাওয়ার কারণ সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক বাচ্চার নড়াচড়া কমে যাওয়ার কারণ। গর্ভাবস্থায় মায়ের পেটে বাচ্চা নড়াচড়া কমে যাওয়ার কারণ অনেক থাকতে পারে তবে এর মধ্যে অন্যতম একটি কারণ হচ্ছে পেটের মধ্যে অক্সিজেনের সরবরাহ কমে যাওয়া। 
অনেক সময় দেখা যায় যে পেটের মধ্য বাচ্চা ঘুরতে ঘুরতে নারীটা বাচ্চার গলায় পেচিয়ে যায় যার কারণে তার ব্লাড সাপ্লাই কমে যায় ও বাচ্চার নড়াচড়াও কমে যায়। তবে আরেকটি কারণ হলো মায়ের রক্ত শূন্যতা। রক্তশূন্যতা হওয়ার কারণে বাচ্চা তখন অক্সিজেন কম পায় এবং বাচ্চার নড়াচড়াও কমিয়ে যায়। মাথায় রাখবেন বাচ্চা নড়াচড়া করে না মানে বাচ্চা ভালো নেই যত দ্রুত সম্ভব ডক্টরের পরামর্শ নিবেন।

১০ মাসের গর্ভবতী

আপনি নিশ্চয়ই ১০ মাসের গর্ভবতী কেমন হয়ে থাকে এবং বাচ্চার অবস্থান কেমন হয় জানতে চাচ্ছেন? হ্যাঁ আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আমরা আলোচনা করব দশ মাসের গর্ভবতী অবস্থা সম্পর্কে বিস্তারিত। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ১০ মাসের গর্ভবতী সম্পর্কে। গর্ভাবস্থার শেষের দিকে আপনার জরায়ু আপনার পেলভিস থেকে আপনার পাশের খাঁচার নিচে প্রসারিত হয়েছে। দশ মাসের গর্ভাবস্থায় লক্ষণ গুলো মূলত নির্ভর করে থাকে যখন ভ্রুন আপনার জরায়ুর নিচের অংশে নেমে আসবে। শ্বাসকষ্ট, কোষ্ঠকাঠিন্য এবং অম্বল সাধারণত যখন ভ্রুন নেমে যায় তখন উন্নতি হয়।

৩৪ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া

৩৪ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে জানতে হলে এই পর্বটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। এই পর্বের মাধ্যমে আজকে আলোচনা করব ৩৪ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় বাচ্চার অবস্থান ও নড়াচড়া সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক ৩৪ সপ্তাহের গর্ভাবস্থায় বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে বিস্তারিত। গর্ভে ৩৪ সপ্তাহ থেকে বাচ্চার নড়াচড়া শুরু হয়।গর্ভের ৩৬ তম সপ্তাহে শিশুর নড়াচড়া সর্বোচ্চ মাত্রায় পৌঁছে যায়।

পরবর্তী থেকে প্রসবের আগ পর্যন্ত গর্ভের ভেতরে শিশুর নড়াচড়া স্থিতিশীল অবস্থান থেকে থাকে। তবে যে সব সময়ের জন্য নড়াচড়ার মাদরাস স্থিতিশীল থাকলেও নড়াচড়ার ধরনের পরিবর্তন এসে যায়। গর্ব অবস্থায় নবম মাসে অর্থাৎ নয় মাসে একটি সুস্থ শিশুর জন্য প্রতি দুই ঘন্টা পর পর প্রায় ১০ বারের মতো লাথি মারা উচিত। যতক্ষণ আপনার পেটের শিশু ২ ঘন্টা পরপর লাথি মারবে ১০ থেকে ১২ বারের মতো ততক্ষণে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।

বাচ্চার নড়াচড়া কম হলে করণীয়

আপনি কি জানেন বাচ্চার নড়াচড়া কম হলে করণীয় কি? যদি না জেনে থাকেন তবে এই পর্বটি আপনার জন্য। আজকের এই পর্বের মাধ্যমে আমরা আলোচনা করব বাচ্চার নড়াচড়া কম হলে কি করনীয় সেই সম্পর্কে। তাহলে চলুন আজকের এই পর্বের মাধ্যমে জেনে নেওয়া যাক বাচ্চার নড়াচড়া কম হলে করণীয় কি। নড়াচড়া হঠাৎ কমে যাওয়া মানে গর্ভাবস্থায় শিশু নিস্তেজ হয়ে পড়ে আছে। কিক বা কমে গেলে মৃত সন্তান প্রসবের ঝুঁকি অনেক বেড়ে যায়। তাই গর্ভকালে বিশেষ করে শেষের দিকে কিক কাউন্ট করা ও যথাযথ সময়ে চিকিৎসকের স্বর্ণপর্ণ হওয়া জরুরি। তবে অবশ্য অক্সিজেনের অভাবে বাচ্চার নড়াচড়া অনেক কমে যায়। তাই একজন গর্ব অবস্থায় মায়ের করনীয় সব সময় সতর্ক থাকা।

শেষ কথা

উপরোক্ত আলোচনা সাপেক্ষে এতক্ষণে নিশ্চয়ই ৯ মাসের গর্ভবতী বাচ্চার নড়াচড়া সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। আপনার যদি এই পর্বটি সম্পর্কে কোন মতামত থেকে থাকে তবে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন এবং আজকের পর্বটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে তবে অবশ্যই বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করবেন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সার্চিং লিংক প্রোর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ২

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৩

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৪