মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন

প্রিয় পাঠক, আমরা আজ মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। রাজধানী ঢাকার যানজট নিরসনের লক্ষ্যে ২০১২ সালে মেট্রো রেল স্থাপনের পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়। এই মেট্রো রেল প্রকল্পের নিয়ন্ত্রক সংস্থা হল ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)। যানজট নিরসন করে দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছাই মেট্রোরেলের একমাত্র উদ্দেশ্য। মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পুরো পোস্টটি পড়ুন।
মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৮শে ডিসেম্বর ২০২২ সালে এমআরটি লাইন-৬ দিয়া বাড়ি থেকে আগারগাঁও আংশিক উদ্বোধন এর মধ্যে দিয়ে এর যাত্রা শুরু করেন।
পোস্ট সুচিঃ মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন
  • ভূমিকা
  • মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন
  • মেট্রো রেল এর চলাচলের সময়সূচি
  • মেট্রো রেল সম্পর্কে প্যারাগ্রাফ বাংলায়
  • মেট্রো রেল সম্পর্কে রচনা
  • শেষ কথা

ভূমিকা

বিশ্বের অনেক বড় বড় শহর গুলোতে দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছানো এবং যানজট নিরসনের জন্য মেট্রো রেল ব্যবহার হয়ে থাকে। সর্বপ্রথম লন্ডনে ১৮৮৩ সালে দ্রুত পরিবহন চালু হয়েছিল। এশিয়া মহাদেশের মধ্যে জাপান হলো প্রথম দেশ যারা ১৯২৭ সালে পাতাল ট্রেন দ্রুতযান হিসেবে চালু করেছিল।
এরপর ১৯৭২ সালে ভারত মেট্রো রেল এর যুগে প্রবেশ করে। অবশেষে বাংলাদেশে ২৮শে ডিসেম্বর ২০২২ সালে আংশিক উদ্বোধনের মধ্যে দিয়ে মেট্রো রেলের যুগে প্রবেশ করে।

মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন

মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন এই আর্টিকেলে আমরা এখন মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। তাহলে চলুন, মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেয়া যাক।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৬ সালের জুন মাসে মেট্রো রেলের নির্মাণ কাজের সূচনা করেন। এর আগে ২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসে "ঢাকা মাস ট্রানজিট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট" বা "মেট্রোরেল" জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) এ অনুমোদিত হয়। 
জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেটিভ এজেন্সি (জাইকা) এর অর্থায়নে প্রকল্পটির কাজ শুরু হয়। মেট্রো রেল প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয় আনুমানিক ২.৮২ বিলিয়ন ডলার। যার মধ্যে জাইকা প্রদান করবে ৭৫% এবং বাকি ২৫% বাংলাদেশ সরকারের তহবিল থেকে। মেট্রোরেল প্রকল্পের জন্য মোট ৫টি রুট লাইন পরিকল্পনা করা হয়। যার মধ্যে রয়েছে এম আর টি লাইন ১, ২, ৪, ৫ এবং ৬।
জাইকা ও ডি এম টি সি এল ২০৩০ সাল নাগাদ ১২৮ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের মোট ছয়টি মেট্রো লাইন নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এই পরিকল্পনায় সর্বমোট ৫১ টি উরাল স্টেশন এবং ৫৩ টি ভূগর্ভস্থ স্টেশন থাকবে। সর্বমোট ছয়টি লাইন মিলিত হয়ে প্রতিদিন ৪৭ লাখ যাত্রী যাতায়াত করতে পারবে।
এমআরটি লাইন-১ (বিমানবন্দর যাত্রা পথ) নামক লাইনটি বিমানবন্দর থেকে কমলাপুর ও নতুন বাজার থেকে পূর্বাচল পর্যন্ত নির্মিত হবে।
  • এমআরটি লাইন-১ (পূর্বাচল যাত্রাপথ) নামক লাইনটি নতুন বাজার থেকে পিতলগঞ্জ ডিপু পর্যন্ত উড়ালপথে নির্মাণ হবে।
  • এমআরটি লাইন-২ গাবতলী থেকে চট্টগ্রাম রোড পর্যন্ত উড়াল এবং পাতাল সমন্বয়ে প্রায় ২৪ কিলোমিটার মেট্রোরেল নির্মাণ হবে।
  • এমআরটি লাইন -৪ কমলাপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ পর্যন্ত প্রায় ১৬ কিলোমিটার দীর্ঘ উড়াল মেট্রো রেল লাইন নির্মাণ হবে।
  • এমআরটি লাইন-৫ (উত্তর) হেমায়েতপুর থেকে ভাটারা পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার লাইন নির্মাণ হবে।
  • এমআরটি লাইন-৫ (দক্ষিণ) গাবতলী থেকে দাসের কান্দি পর্যন্ত ১৭.৪০ কিলোমিটার মেট্রো রেলের জন্য লাইন নির্মাণ হবে।
  • এমআরটি লাইন ৬-উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০.১০ কিলোমিটার লাইন নির্মাণ করা হবে। প্রথম পর্যায়ে দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত লাইনটি ২০২২ সালের ২৮ ডিসেম্বর জনসাধারণের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন এবং তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম যাত্রা করেন।

মেট্রো রেল এর চলাচলের সময়সূচি

  • শুধুমাত্র শুক্রবার ব্যতীত সকল দিন সকাল ৮ থেকে রাত ৮ পর্যন্ত মেট্রো রেল চলাচল করে।
  • একক যাত্রা টিকিট ক্রয়ের সময় সকাল ৭.৩০ থেকে রাত ৮.৩০ পর্যন্ত।
  • MRT pass ক্রয়ের সময় সকাল ৭.৩০ থেকে রাত ৮.00 পর্যন্ত।
  • MRT pass ক্রয়ের নিয়ম http://www.dmtcl.gov.bd অথবা মেট্রো রেল স্টেশন হতে MRT pass নিবন্ধন ফরম সংগ্রহ করে যথাযথভাবে পূরণ করে জমা দিতে হবে।
  • যাতায়াতের স্টেশন সমূহ-উত্তরা উত্তর-উত্তরা দক্ষিণ,পল্লবী-মিরপুর১১, মিরপুর১০ কাজীপাড়া,শেওড়াপাড়া-আগারগাঁও।

মেট্রো রেল সম্পর্কে প্যারাগ্রাফ বাংলায়

মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন এই আর্টিকেলে আমরা এখন আলোচনা করব মেট্রো রেল সম্পর্কে প্যারাগ্রাফ বাংলায় কিভাবে লিখতে পারি সে সম্পর্কে। তাহলে চলুন শুরু করা যাক, মেট্রো রেল সম্পর্কে প্যারাগ্রাফ বাংলায়।
রাজধানী ঢাকার যানজট নিরসনের লক্ষ্যে ২০১২ সালে মেট্রো রেল স্থাপনের পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়। এই মেট্রো রেল প্রকল্পের নিয়ন্ত্রক সংস্থা হল ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)। যানজট নিরসন করে দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছাই মেট্রোরেলের একমাত্র উদ্দেশ্য। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৮শে ডিসেম্বর ২০২২ সালে এমআরটি লাইন-৬ দিয়া বাড়ি থেকে আগারগাঁও আংশিক উদ্বোধন এর মধ্যে দিয়ে এর যাত্রা শুরু করেন।
এর আগে ২০১২ সালের ডিসেম্বর মাসে "ঢাকা মাস ট্রানজিট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট" বা "মেট্রোরেল" জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) এ অনুমোদিত হয়। জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেটিভ এজেন্সি (জাইকা) এর অর্থায়নে প্রকল্পটির কাজ শুরু হয়। মেট্রো রেল প্রকল্পের মোট ব্যয় ধরা হয় আনুমানিক ২.৮২ বিলিয়ন ডলার। যার মধ্যে জাইকা প্রদান করবে ৭৫% এবং বাকি ২৫% বাংলাদেশ সরকারের তহবিল থেকে।
মেট্রোরেল প্রকল্পের জন্য মোট ৫টি রুট লাইন পরিকল্পনা করা হয়। যার মধ্যে রয়েছে এম আর টি লাইন ১, ২, ৪, ৫ এবং ৬। এমআরটি লাইন ৬-উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত ২০.১০ কিলোমিটার লাইন নির্মাণ করা হবে। প্রথম পর্যায়ে দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত লাইনটি ২০২২ সালের ২৮ ডিসেম্বর জনসাধারণের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন এবং তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম যাত্রা করেন।

মেট্রো রেল সম্পর্কে রচনা

মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনায় এখন আমরা মেট্রো রেল সম্পর্কে রচনা লিখব। অনেক লিখিত পরীক্ষা এবং বিভিন্ন শ্রেণীতে এখন মেট্রো রেল সম্পর্কে দশটি লাইন লিখ অথবা একটি রচনা লিখ এরকম প্রশ্ন আসে। তাই নিচের পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়লে আপনি সহজেই মেট্রো রেল সম্পর্কে একটি সুন্দর রচনা লিখতে পারবেন। তাহলে চলুন শুরু করা যাক মেট্রো রেল সম্পর্কে রচনা।
বিশ্বের অনেক বড় বড় শহর গুলোতে দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছানো এবং যানজট নিরসনের জন্য মেট্রো রেল ব্যবহার হয়ে থাকে। সর্বপ্রথম লন্ডনে ১৮৮৩ সালে দ্রুত পরিবহন চালু হয়েছিল। এশিয়া মহাদেশের মধ্যে জাপান হলো প্রথম দেশ যারা ১৯২৭ সালে পাতাল ট্রেন দ্রুতযান হিসেবে চালু করেছিল। এরপর ১৯৭২ সালে ভারত মেট্রো রেল এর যুগে প্রবেশ করে।
রাজধানী ঢাকার যানজট নিরসনের লক্ষ্যে ২০১২ সালে মেট্রো রেল স্থাপনের পরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়। এই মেট্রো রেল প্রকল্পের নিয়ন্ত্রক সংস্থা হল ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)। যানজট নিরসন করে দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছাই মেট্রোরেলের একমাত্র উদ্দেশ্য। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৮শে ডিসেম্বর ২০২২ সালে এমআরটি লাইন-৬ দিয়া বাড়ি থেকে আগারগাঁও আংশিক উদ্বোধন এর মধ্যে দিয়ে এর যাত্রা শুরু করেন।

শেষ কথা

মেট্রো রেল সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন এই পোস্টটিতে আমরা চেষ্টা করেছি মেট্রোরেল সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য তুলে ধরার জন্য। মেট্রোরেল যোগাযোগের ক্ষেত্রে একটি নতুন মাত্রা যোগ করেছে। যেখানে জনগণ নির্বিঘ্নে খুব অল্প সময়ে তার মন্তব্যে পৌঁছে যেতে পারবে। তাই নিঃসন্দেহে মেট্রোরেলের পুরো কাজটি শেষ হলে সাধারণ জনগণ খুবই উপকৃত হবে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সার্চিং লিংক প্রোর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ২

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৩

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৪