রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি ও উপকারিতা

প্রিয় পাঠক, আপনি যদি রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি ও উপকারিতা সম্পর্কে জানতে চান তাহলে এই ওয়েবসাইটের পক্ষ থেকে আপনাকে স্বাগত জানাচ্ছি। আপনি সঠিক জায়গাতেই এসেছেন। এই পোষ্টের মাধ্যমে আমরা রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি ও উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। আশা করি পুরো পোস্টটি আমাদের সঙ্গে থেকে রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি ও উপকারিতা সঠিক ধারণা পাবেন।
রামবুটান ফলের উপকারিতা
রামবুটান একটি বিদেশি ফল। যে সকল বিদেশি ফল বাংলাদেশের চাষ হয় তার মধ্যে রামবুটান অন্যতম। এটি দেখতে লিচুর মত এবং ফলের গায়ে লম্বা দাড়ির মতো চুল আছে। অনেক পুষ্টিগুনে ভরা রসালো ফল রামবুটান। পুরো পোস্টটি জুড়ে থাকছে রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি ও উপকারিতা সম্পর্কে।

ভূমিকা

রামবুটান ফলটির আদি নিবাস ইন্দোনেশিয়া। ইন্দোনেশিয়া থেকেই রামবুটান নামের উৎপত্তি হয়েছে। রামবুটান শব্দের অর্থ রোম বা আশ। ফলটি দেখতে অনেকটা লিচুর মত। তবে ফলের খোসাটি লিচুর চেয়ে অনেক মোটা। খোসা ছাড়িয়ে নিলে লিচুর মতই সাদা গোলাকার ফল বের হয় যার ভিতরে বিজ থাকে। বিজ ফেলে দিয়ে সাদা অংশটুকু খেতে হয়। ফলটি রসালো এবং খেতে বেশ সুস্বাদু।

রামবুটান ফলের উপকারিতা

প্রিয় পাঠক, আপনি নিশ্চয়ই অধীর আগ্রহে জানতে চান রামবুটান ফলের উপকারিতা। হ্যাঁ, আপনি সঠিক জায়গাতেই এসেছেন। এই পোস্টে আমরা রামবুটান ফলের উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। ধৈর্য সহকারে সম্পূর্ণ পোস্টটি পড়ার মাধ্যমে রামবুটান ফলের উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক, রামবুটান ফলের উপকারিতা সম্বন্ধে।
  • রামবুটান ফলে রয়েছে ভিটামিন এ। যা রাতকানা রোগ সহ চোখ ওঠা, চোখ ফোলা এবং চোখের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধ করে।
  • রামবুটানে ২০ থেকে ২৫ শতাংশ শর্করা, প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ও খনিজ উপাদান থাকায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।
  • রামবুটানে রয়েছে ভিটামিন বি কমপ্লেক্স, যা শারীরিক দুর্বলতা থেকে রক্ষা করে।
  • রামবুটানে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। যা শরীরের হাড় ক্ষয় রোধ করে এবং চুল, ত্বক, ইত্যাদি ভালো রাখে।
  • এ ফল ডায়রিয়া, আমাশা ও কৃমি নাশকের প্রতিশোধি হিসেবে কাজ করে।
  • রামবুটানে রয়েছে পর্যাপ্ত কার্বোহাইডেট, যা হজম ক্রিয়ায় সহায়ক ভূমিকা পালন করে।
  • রামবুটান পুরুষের শুক্রানুর পরিমাণ বাড়িয়ে প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।
  • রামবুটান ডায়াবেটিকস রোগীর সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণ রাখতে সহায়তা করে।
  • রামবুটানে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং ক্ষতিগ্রস্ত রক্তনালী রিকভারি করতে সহায়তা করে।
  • রামবুটানের বীজ ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়াতে এবং সাবান ও মম তৈরিতে ব্যবহৃত হয়।
রামবুটান ফলের উপকারিতা সম্পর্কে উপরে বেশ কিছু তথ্য তুলে ধরেছি। এক কথায় মানুষের সুস্থ জীবনধারণের ক্ষেত্রে রামবুটান ফলের জুরি নেই।

রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি

রাম্বুটান যেহেতু একটি বিদেশি ফল তাই আমরা অনেকেই প্রশ্ন করি কিভাবে এই ফলের চাষাবাদ করব? আপনি যদি রামবুটান ফলের চাষাবাদ পদ্ধতি সম্পর্কে জানতে চান তাহলে পুরো পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। আমরা চেষ্টা করব রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার। যাতে করে আপনি খুব সহজেই রামবুটান চাষাবাদ করে লাভবান হতে পারেন।
জলবায়ু
যেসব এলাকায় বেশি বৃষ্টিপাত হয় সেখানে রামবুটান ভালো হয়। তবে ২২ থেকে ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা এর জন্য সবচেয়ে ভালো।  যেখানে তাপমাত্রা ১২ থেকে ১৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস সেখানে রাম্বুটানের চাষ করা যায়। তবে রাম্বুটান বেশি শীত সহ্য করতে পারেনা।
মাটি
দো-আঁশ মাটিতে রামবুটান চাষের জন্য সবচেয়ে ভালো। তবে এটেল মাটিতেও হবে। মাটির পিএইচ হবে ৪.৫ থেকে ৬.৫।
বংশবিস্তার
সাধারণত বিজ থেকে চারা তৈরি করে রামবুটানের চাষ করা হয়। বর্তমানে অনেক জায়গায় কলমের ছাড়াও তৈরি করা হচ্ছে। উপযুক্ত পরিবেশ পেলে ৫ থেকে ৭ দিনের মধ্যেই বিজ থেকে চারা বের হয়ে যায়।
গাছের লিঙ্গ
রামবুটান গাছ সাধারণত তিন ধরনের হয়। পুরুষ, স্ত্রী এবং উভয়লিঙ্গ। পুরুষ গাছের সাধারণত ফুল ধরে কিন্তু ফল হয় না। আর স্ত্রী গাছে স্ত্রী ফুলের পাশাপাশি কিছুসংখ্যক পুরুষ ফুল আসে ফলে পরাগায়নের মাধ্যমে ফল ধরে। আর উভয় লিঙ্গ গাছে পুরুষ ফুল এবং স্ত্রী ফুল উভয়েই আসে ফলে বেশি পরিমাণে ফল ধরে।
রামবুটানের জাত পরিচিতি
যেহেতু এটা একটা বিদেশি ফল তাই এর জাতগুলোও বিদেশী। বাণিজ্যিকভাবে রামবুটান চাষ করার জন্য কিছু উচ্চ ফলনশীল জাত রয়েছে, যেগুলো অনেক ভালো ফলন দিয়ে থাকে এবং রোগ পোকামাকড় সহনশীল। মালয়েশিয়াতে বাণিজ্যিকভাবে চাষ করার জন্য রয়েছে (পি১, পি৪, পি৫, পি৬, পি৮, পি২২, পি২৮, পি৫৪, পি৬৩)। 
এছাড়াও ফিলিপাইনে শিবাবাত, সিঙ্গাপুরের লি, ইন্দোনেশিয়ার মিরাহ ও কয়েনেং নামে বিভিন্ন জাত রয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে BARI রামবুটান ১ এবং BAU রামবুটান ১ নামে চাষ করা হচ্ছে।
চারা লাগানোর সময়
স্বাভাবিকভাবে মধ্য সেপ্টেম্বর থেকে মধ্য অক্টোবর পর্যন্ত রামবুটানের চারা লাগানো যেতে পারে।
রামবুটানের চারা তৈরি করার নিয়ম
রামবুটানে সাধারণত কলম করে চারা তৈরি করতে হয়। আর এজন্যে বীজ থেকে গজানো চারা গাছের বয়স এক বছর হলে মাথা কেটে ফেলতে হবে। এরপর মাতৃগাছ থেকে কলম করার জন্য উপযুক্ত ডাল তেরছা করে কেটে কলম করার নিয়ম অনুযায়ী কলম করতে হবে।
রামবুটান ফল চাষের জন্য মাদা তৈরি
  • নির্বাচিত জমিতে চাষ ও মই দিয়ে জমি সমান করে আগাছা মুক্ত করে নিতে হবে।
  • একটি গর্ত থেকে আরেকটি গর্তের দূরত্ব হবে আট মিটার।
  • প্রতিটি গর্তের সাইজ হবে ১ মিটার X১ মিটার X১ মিটার।
  • চারা রোপনের ১৫ থেকে ২০ দিন পূর্বে প্রতিটি গর্তে ২০ থেকে ২৫ কেজি গোবর, ডিএপি ৫০০ গ্রাম, পটাশ ৩০০ গ্রাম, জিপসাম ২০০ গ্রাম, জিংক, বোরন এবং ম্যাগনেসিয়াম ৫০ গ্রাম করে সমস্ত সার একসাথে মিশিয়ে প্রতিটা গড়তে দিয়ে দিতে হবে।
রামবুটান ফলের গাছের বয়সের ভেদে সার প্রয়োগের পরিমাণ

গাছের বয়স

গোবর/পরিমাণ

ইউরিয়া/পরিমাণ

টি এস পি/পরিমাণ

এম ও পি/পরিমাণ

১-২ বছর

১০-১৫ কেজি

২০০ গ্রাম

২৫০ গ্রাম

১৫০ গ্রাম

২-২৪ বছর

১৫-২০ কেজি

৩০০ গ্রাম

৪৫০ গ্রাম

৩০০ গ্রাম

৩-৭ বছর

২০-২৫ কেজি

৪৫০ গ্রাম

৭৫০ গ্রাম

৪৫০ গ্রাম

৮-১০ বছর

২৫-৩০ কেজি

৭৫০ গ্রাম

১২০০ গ্রাম

৬০০ গ্রাম

১০-১৫ বছর

৩০-৪০ কেজি

১,২০০ গ্রাম

১,৫৫০ গ্রাম

৭৫০ গ্রাম

১৫ বছর প্লাস

৪০-৫০ কেজি

১,৫০০ গ্রাম

২,০০০ গ্রাম

১,০০০ গ্রাম

সেচ ব্যবস্থাপনা
গাছের প্রয়োজনীয় বৃদ্ধি বা বেড়ে ওঠা, ফুল ও ফল ধারণের জন্য নিয়মিত গাছে সেচ প্রয়োগ করতে হবে আর। এটা নির্ভর করবে অবশ্যই মাটির অবস্থার উপর। আবার সেই সাথে অতিরিক্ত পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থাও রাখতে হবে।
পোকামাকড় ও রোগ বালাই দমন ব্যবস্থাপনা
রামবুটান গাছের ফল মোটা আবরণ দিয়ে ঢাকা থাকে, তাই ফলে তেমন পোকামাকড় আক্রমণ করতে পারে না। তার পরেও গাছে ফুল ফল ধরনের সময় ফল ছিদ্রকারী পোকা, আবার গাছের কচি কান্ড বা ডগা অথবা পাতা খেকো পোকা থেকে রক্ষার জন্য অনুমোদিত মাত্রার কীটনাশক ব্যবহার করা যেতে পারে। সেই সাথে পাউডারী মিলডিও ও ঢলে পড়ার রোগ থেকে রক্ষার জন্য অনুমোদিত মাত্রায় রোগ নাশক ব্যবহার করা যেতে পারে।
ফল সংগ্রহ
সাধারণত ফুল ফোটার ৩ থেকে ৪ মাস পর ফল সংগ্রহ করা যায়। একটি পূর্ণবয়স্ক গাছ থেকে ১৫০ থেকে ২৫০ কেজি রামবুটান ফল পাওয়া যায়। বর্তমান বাংলাদেশের প্রতি কেজি ফলের গড় মূল্য ৫৫০ থেকে ৭০০ টাকা পর্যন্ত হয়ে থাকে।

রামবুটানে আছে নানা রোগের ওষুধ

রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি ও উপকারিতা এই আর্টিকেলে আমরা এখন আলোচনা করব রামবুটানে আছে নানা রোগের ঔষধ। সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ার মাধ্যমে রামবুটানে আছে যত রোগের ওষুধ আছে আশা করি জানতে পারবেন। তাই পুরো পোস্টটি পড়ে জেনে নিন রামবুটানে আছে নানা রোগের ওষুধ।
  • নানা পুষ্টি উপাদানে ভরপুর এই রসালো ফল, যার ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।
  • ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীকে রামবুটানের কাঁচা ফল খাওয়ালে বেশ উপকার পাওয়া যায়।
  • শরীরকে সুস্থ রাখতে প্রয়োজন আন্টি-অক্সিডেন্ট যা পাওয়া যায় আরামবুটান ফলের ভিতরে।
  • রামবুটানে আছে ক্যালসিয়াম যা শরীরের হাড় ক্ষয় হতে রক্ষা করে।
  • জাম্বুটান ফলে আঁশ এর পরিমাণ ১ % যার ফলে হজম শক্তিতে দারুন কাজ করে।

রামবুটান ফলের ভেষজ গুণ

প্রিয় পাঠক, আপনি কি রাম বুটান ফলের ভেষজ গুণ সম্পর্কে জানতে চান? তাহলে আপনি সঠিক জায়গাতে এসেছেন। রামবুটান ফলের উপকারিতা ও চাষ পদ্ধতি এই আর্টিকেলে আমরা এখন আলোচনা করব রামবুটান ফলের ভেষজ গুণ সম্পর্কে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক, রামবুটান ফলের ভেষজ গুণ সম্পর্কে।
  • রামবুটান ফলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে এবং রক্তকে পরিষ্কার করে।
  • রামবুটান পুরুষের স্পার্ম কোয়ালিটি বৃদ্ধি করে সেই সাথে রামবুটানের পাতা খেলে যৌন শক্তি বৃদ্ধি পায়।
  • রামবুটান ফলে প্রচুর পরিমাণে আশ টাকায় কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে রক্ষা করে।
  • রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করে ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য বেশ উপকার করে।
  • চুল গজানো, চুলের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি এবং চুলকে মজবুত করতে এই ফল বেশ উপকারী। সেই সাথে রামবুটান ফলের বীজ ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে ব্যবহৃত হয়।

রামবুটান ফলের দাম সম্পর্কে জানুন

আমরা অনেকেই রামবুটান ফলের দাম সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করি। আর এটা খুবই স্বাভাবিক যেহেতু, এটা একটা বিদেশি ফল। তাই আমাদের রামবুটান ফলের দাম জানার আগ্রহ থাকতেই পারে। যখন রামবুটান ফলটি পুরোপুরি আমদানি নির্ভর ছিল তখন ১,০০০ থেকে ১,২০০ টাকা কেজি ছিল। কিন্তু রামবুটান ফলটি এখন বাংলাদেশের অনেক জায়গাতেই চাষ হচ্ছে। 
তাই জেলা পর্যায়ের প্রায় সবগুলো বাজারেই এই ফল দেখতে পাওয়া যায়। আর সকল পণ্যের দামই নির্ভর করে সেই সময়ের চাহিদা এবং সরবরাহের উপর। তবে আমাদের দেশে বর্তমানে গড়ে ৫০০ থেকে ৭০০ টাকা কেজি ধরে রামবুটান ফল কিনতে পাওয়া যায়।

রামবুটান ফলের ছবি

রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি ও উপকারিতা এই পোষ্টের মাধ্যমে এখন আমরা এই বিদেশী ফল রামবুটানের ছবি দেখব। রামবুটান যেহেতু একটা বিদেশি ফল তাই অনেকের মধ্যেই এই কৌতূহল তৈরি হয়। ফলটি দেখতে কেমন? এর কালার কেমন? এটা খেতে কেমন? আমাদের এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ার মাধ্যমে অবশ্যই এই উত্তর গুলো আপনি পেয়ে যাবেন।

রামবুটান গাছের ছবি

আবার অনেকেরই আগ্রহ থাকে রামবুটান গাছ দেখতে কেমন। রামবুটান গাছ দেখতে কেমন বা রামবুটান গাছের ছবি দেখার যাদের আগ্রহ তাদের জন্য নিচে কিছু ছবি দেখানো হলো।

রামবুটান ফলের চারা কোথায় পাওয়া যায়

রামবুটান ফলের চারা কোথায় পাওয়া যায় অনেকেই এই প্রশ্নটি করে থাকেন। আবার অনেকেই ভাল মানের চারা না পেয়ে এবং সঠিক ব্যবস্থাপনা না জানার কারণে চাষ করেও লাভবান হতে পারছেন না।রামবুটান ফলের উপকারিতা ও চাষ পদ্ধতি এই পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ার মাধ্যমে আমরা বিশ্বাস করি রামবুটান ফল চাষের সমস্ত বিষয়গুলো জেনে যাবেন।
আমরা এখন আলোচনা করব রামবুটান ফলের চারা কোথায় পাওয়া যায়। বাণিজ্যিকভাবে বাংলাদেশের অনেক জায়গাতেই বিভিন্ন নার্সারি ব্যবসায়ী তাদের নার্সারিতে ফলের চারা তৈরি করে থাকেন। আপনি চাইলে আপনার আশেপাশের নার্সারিতে খোঁজ করতে পারেন। যদি আশেপাশে না পান সে ক্ষেত্রে কৃষি অফিসের সহযোগিতা নিন।
সেখান থেকে অবশ্যই ভালো একটা সমাধান পাবেন। তারপরও যদি রাম্বুটান ফলের চারা না পান সেক্ষেত্রে ইউটিউবে এসে রা রামবুটান ফলের উপকারিতা ও চাষ পদ্ধতি মবুটান ফলের চারা কোথায় পাওয়া যায় এটা লিখে সার্চ করুন। দেখবেন অনেকগুলো চ্যানেল আছে। এখানে অনেকেই খুবই মানসম্মত রামবুটান ফলের চারা বিক্রি করছে।
আপনি চাইলে সহজেই সেখান থেকে গুণগত মান সম্পন্ন ছাড়া পেতে পারেন। আপনাদের সুবিধার জন্য নিচে একটি চ্যানেলের লিংক দেওয়া হল। এই লিংকে প্রবেশ করে আপনি এখানে যোগাযোগ করে রামবুটান ফলের চারা ক্রয় করতে পারবেন।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক, রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি ও উপকারিতা এই আর্টিকেলে আমরা চেষ্টা করেছি রামবুটান ফলের চাষ পদ্ধতি ও উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য সুন্দর ভাবে তুলে ধরার জন্য। আশা করি এ সংক্রান্ত সমস্ত প্রশ্নের উত্তর আপনি পেয়ে গেছেন। আর এই সুন্দর পোস্টটি যদি আপনার ভালো লেগে থাকে অবশ্যই আপনার প্রিয়জনদের সাথে শেয়ার করুন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সার্চিং লিংক প্রোর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ২

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৩

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৪