আম গাছে মুকুল আসার আগে ও পরে করনীয় বিষয়

আম একটি পুষ্টিকর ও রসালো ফল। যে সকল বাড়িতে আমের গাছ আছে অথবা যার আমের বাগান আছে তাদের জন্যই আমাদের আজকের এই আর্টিকেলটি সাজিয়েছি। আম গাছে মুকুল আসার আগে ও পরে করনীয় বিষয়গুলো জানার মাধ্যমে আমের ফলনকে অনেক গুণ বাড়িয়ে নেওয়া সম্ভব। তাই আমাদের আজকের এই আর্টিকেলটি আম গাছে মুকুল আসার আগে ও পরে করনীয় বিষয় মনোযোগ সহকারে পড়ে শিখে নিন।
আম গাছে মুকুল আসার আগে ও পরে করনীয় বিষয়

সকল আম গাছেই এখন আমের মুকুল আসছে। আর এই মুকুল বিভিন্ন কারণেই ঝরে যায়। ফলে সঠিক সময়ে ও সঠিক জ্ঞান না থাকার কারণে আমের ফলন অনেক কমে যায়। তাই আমাদের আজকের আলোচ্য সূচী আম গাছে মুকুল আসার আগে ও পরে করনীয় বিষয় মনোযোগ সহকারে পড়ে বিষয়টি জেনে নিন।

আম গাছে মুকুল আসার আগে করনীয়

আম গাছে মুকুল আসার আগে ও পরে করনীয় বিষয় এই আর্টিকেলে এখন আমরা আলোচনা করব আম গাছে মুকুল আসার আগে করনীয় বিষয়গুলো নিয়ে। আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ে ভাল করে জেনে নিন আম গাছে মুকুল আসার আগে করনীয় বিষয়।
  • আম গাছে ফুল আসার অন্তত ১৫ দিন আগে গাছে বা বাগানে পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি দিতে হবে।
  • গাছের বয়স দুই থেকে তিন বছর হলে টিএসপি সার ২০০ গ্রাম এবং এমপি সার ২৫০ গ্রাম মিশিয়ে গাছের গোড়ায় দিতে হবে।
  • গাছের বয়স চার থেকে পাঁচ বছর হলে টিএসপি সার ৩০০ গ্রাম এবং এমওপি সার ৩৫০ গ্রাম একসাথে মিশিয়ে গাছের গোড়ায় দিতে হবে।
  • গাছের বয়স ৬ থেকে ৭ বছর হলে টিএসপি সার ৪০০গ্রাম এবং এমওপি সার ৫০০ গ্রাম একসাথে মিশিয়ে গাছের গোড়ায় দিতে হবে।
  • গাছের বয়স ৮ থেকে ৯ বছর হলে টিএসপি সার ৫০০ গ্রাম এবং এমওপি সার ৮০০ গ্রাম একসাথে মিশিয়ে গাছের গোড়ায় দিতে হবে।
  • গাছের বয়স ১০ বছর থেকে তার ঊর্ধ্বে হলে টিএসপি সার ৮৫০ গ্রাম এবং এমওপি সার ১২০০ গ্রাম একসাথে মিশিয়ে গাছের গোড়ায় দিতে হবে।
  • প্রতিবার সার প্রয়োগের সময় পর্যাপ্ত পরিমাণে গোবর বা কম্পোস্ট সার এবং সেই সাথে জিপসাম ২০০ থেকে ২৫০ গ্রাম, জিংসার ২০ থেকে ২৫ গ্রাম, বোরন সার ৩০ থেকে ৩৫ গ্রাম বছরের দুই বার গাছের গোড়ায় দিতে হবে। প্রতিবার সার প্রয়োগের পর পানি সেচ দিতে হবে।

আম গাছে ফুল আসার সময় করনীয়

প্রিয় পাঠক,আম গাছে মুকুল আসার আগে ও পরে করনীয় বিষয় এই আর্টিকেলে এখন আমরা আলোচনা করব আম গাছে ফুল আসার সময় করণীয় বিষয়গুলো নিয়ে। আশা করি, বিষয়গুলো মেনে চললে অথবা পালন করলে আমের ফল ধারণ ক্ষেত্রে অনেক সফলতা আসবে।
ফুল ফোটার সময় পুষ্প মঞ্জুরীতে পাউডারী মিলডিও এবং অ্যান্থ্রাইকোনো রোগের আক্রান্ত হতে পারে। আর এ রোগের আক্রমণের ফলে গাছের কচি পাতা, ডগা, মুকুল ও কচি আমে কালো দাগ পরে। তাই মুকুল আসার ১০ দিনের মধ্যেই সাইপারমেথ্রিন ১০ ইসি গ্রুপের কীটনাশক যেমন- কট অথবা রিপকর্ড প্রতি লিটার পানিতে ১মিলি লিটার এবং সেই সাথে প্রোপিকোনাজল ২৫০ ইসি গ্রুপের ঔষধ যেমন টিল্ট ০.৫ মিলি একসাথে মিশিয়ে সমস্ত গাছে সুন্দর করে স্প্রে করতে হবে।

আম গাছে মুকুল আসার পরে করনীয়

আম গাছে মুকুল আসার পরে করনীয় বিষয়গুলো জেনে সঠিক নিয়মে সময়মতো যত্ন করলে সর্বোচ্চ পরিমাণে ফলন পাওয়া যাবে তাই আম গাছে মুকুল আসার পরে করণীয় বিষয়গুলো ভালোভাবে পড়ে জেনে নিন।
আম গাছে মুকুল আসার পর থেকে ১৫ দিন পর পর কমপক্ষে চারবার আম গাছের গোড়ায় অথবা বাগানে শেষ দিতে হবে।
আমের গুটি মটর দানার মত হলেই একবার গাছের গোড়ায় সেচ দিতে হবে।
ফল মটর দানার আকৃতির মত হলে প্রাথমিক পর্যায়ে আমের উইভিল ও ফল ছিদ্রকারী পোকা আক্রমণ করে। তাই এ পোকা দমনের জন্য সাইপারমেথ্রিন ১০ ইসি গ্রুপের কীটনাশক প্রতি ১ লিটার পানিতে মিশিয়ে এবং সেই সাথে মেনকোজে বা কার্বন-ডাজিম গ্রুপের ছত্রাকনাশক যেমন -নইন, অটোস্ট্রিন এর যে কোন একটি ছত্রাকনাশক প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম করে একসাথে মিশিয়ে সুন্দরভাবে গাছটাকে ভিজিয়ে দিতে হবে।

আম গাছে ফল ঝরা রোধে করনীয়

আম গাছে ফল ঝরা রোধে করনীয় এই বিষয়টি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এটি একটি কমন সমস্যা। প্রতিটি গাছে বা বাগানেই এই সমস্যাটি হয়ে থাকে। তাই আম গাছে ফল ছাড়া রোধে করণীয় বিষয়টি গুরুত্বের সাথে জেনে নিন।
প্রতি লিটার পানিতে ২০ গ্রাম ইউরিয়া মিশিয়ে ফল মটর দানা অবস্থায় স্প্রে করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।
যারা গাছের গোড়ায় বছরে দুইবার সার প্রয়োগ করেননি তাদের বাগানে বা গাছে সারের ঘাটতি বা অনুব খাদ্যের অভাবে ফল ধরে যেতে পারে। তাই অবশ্যই ট্রায়কন্ট্রানল গ্রুপের মিরাকুলান বা ম্যাগনাল এর যেকোনো একটি পিজিআর প্রতি লিটার পানিতে ০.৫ মিলি হারে মিশিয়ে বিকেল বেলা স্প্রে করুন।

ফল ফেটে যাওয়া রোধে করণীয়

আম গাছে মুকুল আসার আগে ও পরে করনীয় বিষয় এই আর্টিকেলে ইতিমধ্যে আমরা বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছি। এবার আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় যা হলো ফল ফেটে যাওয়ার রোধে করণীয় এটিও আম চাষিদের জন্য বড় একটা সমস্যা। ছোট্ট একটি টিপস অবলম্বন করলেই এই সমস্যা থেকে আমরা রেহাই পেতে পারি। তাহলে আসুন এবার জেনে নিন ফল ফেটে যাওয়া রোধে করনীয়।
  • প্রতি লিটার পানিতে সলুবর বোরন ২ গ্রাম এবং চিলেটেড জিংক ১ গ্রাম হারে মিশিয়ে স্প্রে করলে ভালো ফল পাওয়া যায়।
  • প্রতিটা স্প্রে করার ক্ষেত্রেই লক্ষ্য করতে হবে বেশি রোদ্রজ্জ্বল পরিবেশে স্প্রে করা থেকে বিরত থাকা। সম্ভব হলে সকাল আটটার মধ্যেই অথবা বিকেল বেলা স্প্রে করা।

লেখক এর কথা

আম গাছে মুকুল আসার আগে ও পরে করনীয় বিষয় এই আর্টিকেলে আমরা চেষ্টা করেছি সকল রকমের আপডেট তথ্য দিয়ে আম গাছে মুকুল আসার আগে ও পরে করনীয় বিষয় নিয়ে আলোচনা করার। আশা করি, আপনারা যদি উপরের বিষয়গুলো মেনে চলেন তাহলে অবশ্যই আপনার প্রিয় আমবাগান থেকে সর্বোচ্চ পরিমাণ ফলন পাবেন। 
আমাদের এই পোস্টটি যদি আপনার এতটুকু উপকারে এসে থাকে তাহলে মন্তব্য করে জানাবেন। সেইসাথে অন্যদের সাথেও শেয়ার করবেন যাতে করে তারাও উপকৃত হতে পারে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

সার্চিং লিংক প্রোর নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ১

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ২

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৩

এইটা একটি বিজ্ঞাপন এরিয়া। সিরিয়ালঃ ৪